খেলাধুলা

আজ শুরু হচ্ছে বঙ্গবন্ধু বিপিএল’র মাঠের লড়াই

ছবি: সংগৃহীত

ইশতিয়াক পারভেজ : আলোচনা-সমালোচনার মধ্যদিয়ে রঙিন আয়োজনে উদ্বোধন হয়েছে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার টি-টোয়েন্টি (বিপিএল) লীগ।

গত রোববার সালমান খান-ক্যাটরিনা কাইফের উত্তাল নাচের তালে মুগ্ধ হন দর্শকরা। আজ শুরু হচ্ছে মাঠের লড়াই। উদ্বোধন অনুষ্ঠান কেমন হবে তা নিয়ে যেমন শঙ্কা ছিল তেমনই মাঠের খেলা নিয়েও আছে। দল পরিচালনায় এবার কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজি নেই। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বিপিএল-এ এবার হচ্ছে বিশেষ আসর। তবে বিদেশি ক্রিকেটার থাকলেও তাদের বেশিরভাগের মান নিয়ে প্রশ্ন আছে। শেষ মুহূর্তে তাড়াহুড়ো করে দলগুলো তাদের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

এখনো অনেক দলের সঙ্গে বিদেশি ক্রিকেটাররা যোগ দিতে পারেননি। আবার ম্যাচের আগের দিন দলের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন অনেক বিদেশি। এবার ৭ দল অংশ নিচ্ছে বিপিএলে। এর মধ্যে কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সের নিয়ন্ত্রণ থাকছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) হাতে। অবশ্য দুটি দল ছিল বিসিবির, কিন্তু গতকাল রংপুরের স্পন্সর ছেড়ে দেয় তারা। দলটির নতুন স্পন্সর হয়েছে ইনসেপ্টা বাংলাদেশ। আজ প্রথম দিনে দুপুর দেড়টায় মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের মুখোমুখি হবে সিলেট থান্ডার। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সের মোকাবিলা করবে রংপুর রেঞ্জার্স। বিপিএল শুরুর আগে দুই দফা সময় পরিবর্তন করা হয়েছে। সবশেষ গতকাল নিশ্চিত করা হয় সময়। মিরপুর শেরে বাংলা ছাড়াও বিপিএল আয়োজন হবে সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ও চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে। আয়োজন নিয়ে বিশৃঙ্খলা যাই হোক মাঠের লড়াই জমজমাট হবে বলে দাবি বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিকের। তিনি বলেন, ‘উদ্বোধন ভালোভাবেই সম্পন্ন হয়েছে। আমি মনে করি মাঠের খেলাও দারুণ হবে। আমরা উইকেট থেকে শুরু করে ভেন্যু সব কিছুই প্রস্তুত রেখেছি। এখন পর্যন্ত যতটা জানি সবকিছু ঠিকঠাক আছে।’

বিপিএলের আগের ৬ আসরে দলগুলো ছিল ফ্র্যাঞ্চাইজি নির্ভর। ২০১২ থেকে শুরু হওয়া এই আসরে এবার অনেক কিছুই বদলেছে। বিসিবি নতুন করে আগের ফ্র্যাঞ্চাইজিদের সঙ্গে চুক্তি করেনি। কারণ ৬ আসরেই শেষ হয়েছে বিপিএলের প্রথম সার্কেলের মেয়াদ। দ্বিতীয় মেয়াদের জন্য শুরুতে চুক্তির জন্য ফ্র্যাঞ্চাইজিদের আহ্বান করা হলে সৃষ্টি হয় নতুন জটিলতা। তারা বিসিবিকে শর্ত দিয়ে চুক্তি করতে চেয়েছিল। শেষ পর্যন্ত নতুন করে আর চুক্তি না করে বিসিবিই অস্ট্রেলিয়ার বিগ ব্যাশের আদলে সব দলের মালিকানা ও নিয়ন্ত্রণ হাতে তুলে নেয়। বিসিবির সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন ঘোষণা করেন এবারের বিপিএল হবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে। কারণ আগমী বছর তার জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে দেশজুড়ে শুরু হবে ক্রীড়া উৎসব। এবার দলগুলো মালিক বিসিবি হলেও স্পন্সরশিপ পেয়েছে কয়েকটি কর্পোরেট প্রতিষ্ঠান। অবশ্য বিসিবির একজন করে পরিচালক থাকবে দলগুলোর পরিচালক হিসেবে। যমুনা ব্যাংক স্পন্সর হয়ে পরিচালনা করছে ঢাকা প্লাটুন। এই দলের পরিচালক হিসেবে আছেন বিসিবির টুর্নামেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান গাজী গোলাম মুর্তজা। আর নেতৃত্ব দেবেন দেশের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। আরেক করপোরেট প্রতিষ্ঠান আখতার ফার্নিশার্স স্পন্সর হয়েছে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের। এই দলের অধিনায়ক ইমরুল কায়েস। তাদের পরিচালক বিসিবির মিডিয়া বিভাগের চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস। প্রিমিয়ার ব্যাংক চালাচ্ছে খুলনা টাইগার্স। পরিচালক হিসেবে থাকছেন বিসিবির গেম ডেভালপমেন্টের চেয়ারম্যান খালেদ মাহমুদ সুজন। এই দলের নেতৃত্বে দেখা যাবে মুশফিকুর রহীমকে। এছড়াও সিলেট থান্ডারের পরিচালক করা হয়েছে ফেসালিটিস কমিটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তানজিল চৌধুরীকে। এই দলের স্পন্সর হয়েছে জিভানী ফুটওয়্যার কোম্পানি। সিলেটের অধিনায়ক করা হয়েছে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতকে। আর রাজশাহীর পরিচালক পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন এনায়েত হোসেন সিরাজ। এই বিসিবি পরিচালক দায়িত্ব নিয়েছেন রংপুর রেঞ্জার্সের। রাজশাহীর অধিনায়ক ক্যারিবীয় তারকা আন্দ্রে রাসেল। রংপুরের স্পন্সর ইনসেপ্টা বাংলাদেশ। আরেক বিদেশি মোহাম্মদ নবীকে অধিনায়ক ঘোষণা করে তারা। শুধু মাত্র কুমিল্লার স্পন্সরশিপ বিসিবির হাতে। দলটির পরিচালক নাঈমুর রহমান দুর্জয়। আর নেতৃত্ব দিচ্ছে শ্রীলঙ্কার দাসুন শানাকা।

আজ থেকে শুরু হয়ে ঢাকার প্রথম পর্ব চলবে ১৪ই ডিসেম্বর পর্যন্ত। এরপর ১৭ই ডিসেম্বর থেকে শুরু হবে চট্টগ্রাম পর্ব। ফের ঢাকায় বিপিএল ফিরবে ২৭শে ডিসেম্বর। আর তৃতীয় ভেন্যু সিলেটে আগামী বছর ২রা থেকে ৪ঠা জানুয়ারি পর্যন্ত। ঢাকার শেষ পর্ব শুরু হবে ৭ই জানুয়ারি। এরপর ১৭ই জানুয়ারি হবে ফাইনাল।

আজকের খেলা
চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স-সিলেট থান্ডার
দুপুর ১:৩০
কুমিল্লা ওয়ারিয়র্স-রংপুর রেঞ্জার্স
সন্ধ্যা ৬:৩০