উখিয়ায় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত মিসেলের দাফন সম্পন্ন

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : উখিয়ার কোর্টবাজারের দক্ষিণ পাশে পালং গার্ডেন কমিউনিটি সেন্টারের সামনে মর্মান্তিক মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত এহসানুল হক মিশেলের নামাজের জানাজা ও দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

বুধবার আসরের নামাজের পর রাজাপালং ইউনিয়নের তুতুরবিল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত নামাজের জানাজায় শোকাহত মানুষের ঢল নামে। পরে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন করা হয়।

নিহত মিসেল রাজাপালং ইউনিয়নের তুতুরবিল গ্রামের জাফর আলমের ছেলে ও সাবেক ছাত্রলীগ নেত্রী তছলিমা আক্তার রোমানার ছোট ভাই। সে কক্সবাজার সিটি কলেজের ছাত্র ছিল। এছাড়াও বেসরকারি একটি উন্নয়ন সংস্থায় চাকরিতে কর্মরত।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গত মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারি) রাত ৯ টার দিকে কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কের  উখিয়ার  পালং গার্ডেনের সামনে মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে ২ জন গুরুতর আহত হয়। আহত একজন রাজা পালং তুতুরবিল এলাকার এহসানুল হক মিসেল (২৩) অপরজন রাজাপালং উত্তর পুকুরিয়া এলাকার তারেক (২২)।

ঘটনাস্থল থেকে তাদেরকে উদ্ধার করে  কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। পরে আহত এহসানুল হকের অবস্থার অবনতি হলে সদর হাসপাতালের দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে রেফার করেন। চট্টগ্রাম নেয়ার পথে (রাত ২ঃ ৩০ মিনিটে) তিনি শেষ নিঃস্বাস ত্যাগ করেন বলে জানিয়েছেন তার পরিবার। চট্টগ্রাম মেডিকেলে পৌছালে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

উল্লেখ্য, গত ৪ জানুয়ারি সকাল ১০টায় কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কের উখিয়ার পালংখালী এলাকায় কক্সবাজার থেকে টেকনাফমুখী ট্রাকের সঙ্গে হোয়াইক্যং থেকে উখিয়ার কুতুপালংগামী এক মোটরসাইকেলের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী র‌্যাব- ১৫ এর সদস্য লেন্সনায়ক তরিকুল ইসলাম নিহত হন।

গত ১২ জানুয়ারি সকালে কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কের উখিয়ার কাস্টমস টিভি টাওয়ার এলাকায় টেকনাফমুখী সেন্টমার্টিন পরিবহনের সাথে টমটমের (ইজিবাইক) মুখোমুখি সংঘর্ষে উখিয়া উপজেলার পালংখালী ইউনিয়নের জাফর আহমেদ (৩২) ও নাইক্ষ্যংছড়ির উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নের মনির আহমদ (৩০) নিহত হন।

রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।