কক্সবাজারপর্যটন

কক্সবাজারে কলেজ ছাত্রের রগ কেটেছে ছিনতাইকারিরা

সংগৃহীত ছবি

রাইজিং কক্স ডেস্ক : কক্সবাজারের শহরের ছিনতাই জোন হিসেবে খ্যাত সার্কিট হাউস রোড ছিনতাই অব্যাহত রয়েছে। গত এক সপ্তাহে ঘটেছে ৪ টি ছিনতাইয়ের ঘটনা। ছিনতাইকারির ছুরিকাঘাতে আহত কলেজ ছাত্রের অবস্থা আশংকাজনক।

সম্প্রতি কক্সবাজার শহরে ছিনতাইয়ের ঘটনা বেড়ে গেছে। সার্কিট হাউস রোড, গোলচত্বর এলাকা, সাবমেরিন ক্যাবল ও কৃষি গবেষনা ইনষ্টিউিট সংলগ্ন ভোকেশনাল ইনস্টিটিউট এলাকা, সৈকতের ঝাউবাগান, ডায়বেটিক হাসপাতাল সংলগ্ন, কবিতা চত্বর, কাটা পাহাড় রোড সহ বিভিন্ন পয়েন্টে ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে। বিশেষ সার্কিট হাউস রোডে প্রতিনিয়ত ছিনতাইয়ের কবলে পড়ছে স্থানীয়সহ পর্যটকরা। পথচারি ও টমটম যাত্রীদের উপর হামলা করে সর্বস্ব ছিনিয়ে নিচ্ছে তারা। ছিনতাইয়ের বেশিরভাগ ঘটনা প্রকাশ পায়না এবং ছিনতাইকারিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেয়ায় বেপরোয়া হয়ে উঠেছে ছিনতাইকারিরা।

৪ জানুয়ারী বিকাল সাড়ে ৩ টার দিকে সার্কিট হাউস রোডে এক কলেজ ছাত্রসহ দুইজনের সর্বস্ব ছিনিয়ে নিয়েছে ছিনতাইকারিরা। এই সময় ছিনতাইকারিরা কক্সবাজার কলেজের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের (একাউন্টিং) ছাত্র ইমরুল ইসলামের হাত পায়ের রগ কেটে দেয়। আহত ইমরুল মহেশখালীর গোরকঘাটার পুটিবিলা গ্রামের মো: হোসেনের পুত্র। ছিনতাইয়ের কবলে অপর জন হচ্ছেন তার মামাতো ভাই রাশেদ।

তারা জানান, বীচে যাওয়ার উদ্দেশ্যে শহরের বিলকিস মার্কেট থেকে টমটমে উঠে। এই সময় টমটম চালক ও তার পাশে একজন লোক বসেছিল। টমটম চালক পথিমধ্যে কোন যাত্রী না তুলে রওয়া দেয়। চালকের পাশে লোকটি মোবাইলে কথা বলতে থাকে। সার্কিট হাউস রোডে পৌছলে হঠাৎ যাত্রী বেসে ৩ জন যুবক টমটমে উঠে বসে। আর সাথে সাথে ছুরি বের করে মানিব্যাগ, মোবাইল ছিনিয়ে নেয়। মোবাইল দিতে দেরি করাই ছিনতাইকারিরা কলেজ ছাত্র ইমরুলকে ছুরিকাঘাত করে তার হাত ও পায়ের রগ কেটে দেয়। তাকে দু্রৃত সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। দায়িত্বরত জরুরী বিভাগের চিকিৎসক জানান, রগ কেটে যাওয়ায় প্রচুর রক্তকরন হওয়ায় অনেকটা ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে ইমরুল।
এর দুয়েকদিন আগে গোলচত্বর মাঠের পাশে এক পর্যটক ছিনতাইয়ের শিকার হয়। এসময় জনতা মোটর সাইকেলসহ ছিনতাইকারিকে আটক করে।

এর আগে কবিতা চত্বরের পাশে আবু নামের এক ব্যক্তির ৩০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয় ছিনতাইকারিরা।
বানিজ্যমেলায় যাওয়ার পথে আরআরআরসি অফিসের পাশে স্থানীয় বাহারছড়া এলাকার এক ব্যক্তির মোবাইল ছিনিয়ে নেয়। এই রকম অসংখ্য ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে যা প্রকাশ হচ্ছেনা। এ ছাড়া এসব ছিনতাইয়ের ঘটনায় পুলিশের জোরালো ভুমিকা না থাকায় বেপরোয়া
হয়ে উঠেছে ছিনতাইকারিরা।

এ ব্যাপারে কক্সবাজার মডেল থানায় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহাজাহান কবির জানান, ছিনতাইকারিদের হামলায় কলেজ ছাত্র আহত হয়েছে। এই ব্যাপারে সদর হাসপাতালে গিয়ে ছিনতাইয়ের শিকার ছাত্রের কাছ থেকে ঘটনা বিবরন নেয়া হয়েছে। ছিনতাইকারিদের আটক করতে অভিযান অব্যাহত আছে। অভিযান আরো জোরদার করা হবে।

এদিকে আটক হওয়া ছিনতাইকারিদের থানা থেকে ছাড়িয়ে আনতে তদবির করা হয়। এমন কি ছিনতাইকারিদের আটক না করতেও তদবির চলছে বলে জানা যায়। এসব তদবিরে সম্পৃক্ত রয়েছে সরকারি দলের প্রভাবশালী নেতারা।

Comment here