কক্সবাজার

কক্সবাজারে ভোক্তা অধিকারের সহকারী পরিচালককে গ্যাস ব্যবসায়ী নেতাদের হুমকি, থানায় জিডি

মোঃ ইমরান হোসাইন। ফাইল ছবি

ডেস্ক নিউজ : সরকারি দায়িত্ব পালন ও ব্যক্তিগত জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মোমোঃ ইমরান হোসাইন। কক্সবাজার জেলা এলপি গ্যাস ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি সরওয়ার কামাল ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম আরিফ লিটন সরকারি কাজে বাধা দেয়া, অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ ও হুমকি প্রদর্শন করায় তিনি এই জিডি করেন।

গতকাল বুধবার রাতে তিনি থানায় গিয়ে জিডিটি করেন।

ইমরান হোসাইন জানান, গত ৭ অক্টোবর ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ ২০০৯ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে কক্সবাজার এন্টারপ্রাইজ নামক প্রতিষ্ঠানে তার নেতৃত্বে উক্ত প্রতিষ্ঠানে অভিযান পরিচালনা করেন। অভিযোগের প্রমাণ পাওয়ায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর ২৭ ধারানুযায়ী ওই প্রতিষ্ঠানসহ পাশ্ববর্তী মেসার্স এসআর গ্যাস বিতানকে সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেয়া হয়।

তিনি জানান, দোকান বন্ধকে কেন্দ্র করে কক্সবাজার এলপি গ্যাস ব্যাবসায়ী সমিতির সভাপতি সরওয়ার কামাল ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম আরিফ লিটনের নেতৃত্বে অন্যান্য সদস্য ও কক্সবাজারের খুচরা গ্যাস ব্যবসায়ীদের নিয়ে প্রতিবাদ সভার আয়োজন করেন। এ সভায় এলপি ব্যবসায়ী সমিতির নেতারা সরকারি কাজে বাধা, অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও প্রকাশ্যে হুমকি প্রদর্শন করেন।

ইমরান হোসাইন বলেন, জেলা প্রশাসন ও জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর কক্সবাজার জেলা কার্যালয়ের নেতৃত্বে গ্যাসের অতিরিক্ত মূল্য বৃদ্ধির অভিযোগে লাগাতার অভিযান পরিচালিত হয়। অভিযানের আগে গ্যাসের দাম সিন্ডিকেট করে ১১শ’ টাকা নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু অভিযানের পর ভেঙে যায় সেই সিন্ডিকেট। বর্তমানে গ্যাসের বাজার কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আসে। সর্বশেষ গত মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) বিকালে জেলা প্রশাসন ও এলপিজি গ্যাস ব্যবসায়ীদের মধ্যে সভায় কক্সবাজারে এলপি গ্যাসের দাম ৭৫০ টাকা নির্ধারণ করা হয়।

জিডির বিষয়ে কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি শেখ মুনীর উল গীয়াস জানান, সরকারি কাজে বাধা, অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ ও প্রকাশ্যে হুমকি প্রদর্শন উল্লেখ করে বুধবার (১৪ অক্টোবর) রাতে ইমরান হোসাইন জিডি করেছেন। বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।