কক্সবাজারপাঠকের কলাম

কক্সবাজার শহরের সড়কের বেহাল দশা: ভোগান্তির শিকার কক্সবাজারবাসী

ইউছুফ আরমান : টানা বর্ষণে পর্যটন নগরী কক্সবাজারের শহর ও শহরতলীর প্রধান সড়ক ও উপ-সড়কের বেহাল দশা বিরাজ করছে। যাতে প্রতিনিয়তেই জনদূর্ভোগের সৃষ্টি হচ্ছে। পৌর এলাকার প্রধান সড়কের কিছু কিছু অংশ ঠিক থাকলেও পুরো পৌরসভার অলিগলি সড়ক উপসড়ক এখন খানাখন্দকে ভরপুর।

সচেতন মহলের দাবি- কক্সবাজার শহর বিশ্বের কাছে একটি পর্যটন নগরী হিসেবে পরিচিত। তাই এখানকার সড়কের এমন অবস্থা হয়েছে তা-নিজেদের লজ্জিত মনে হচ্ছে। কোন কোন সড়ক দিয়ে চলাচল একেবারেই অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। শহরের প্রধান সড়ক ও উপ-সড়ক দিয়ে প্রতিনিয়তই ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে হাসপাতালে আসা রোগি, রোগির স্বজন-সহ দূর-দূরান্ত থেকে আসা হাজারো জনসাধারণ। পাশাপাশি চরম ভোগান্তির শিকারও হচ্ছেন বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

দীর্ঘদিন ধরে অবহেলা ও দূর্নীতির কারণে সংস্কার হচ্ছে না। এমনকি মাঝে মধ্যে কোন সড়ক সংস্কার হলে নিন্মমানের দ্রব্যসামগ্রী ব্যবহার করায় সড়কের মেয়াদ ৬ মাসও টেকসই থাকেনা। এর কারণে পিচ-খোয়া উঠে তৈরি হয়েছে ছোট ছোট অসংখ্য গর্ত ও খানা-খন্দক। প্রতিদিন এই সড়কে হেলেদুলে ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন। সড়কে নিত্যদিন যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। রাস্তার বেহাল দশা ও ভোগান্তির যন্ত্রণায় ইদানীং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে চলছে ক্ষোভের অনুভূতির প্রকাশ। কক্সবাজারের শহর ও শহরতলীর প্রায়ই সড়ক উপসড়ক খানা-খন্দকে ভরপুুর। বিশেষ করে উপজেলা গেইটে, বাসটার্মিনাল, আলির জাহাঁল প্রধান সড়কে,চৌধুরী ভবনের সামনে প্রধান সড়কে, বিভিন্ন অলিগলি-সহ প্রায়ই প্রধান সড়ক ও উপ-সড়কের ছোট ছোট গর্ত ও খানা খন্দকে ভরপুর। এমনকি কোন কোন জায়গায় একেবারেই চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এর ফলে যানজট নিত্য দিনের সঙ্গীতে পরিণত।

জায়গায় শুধু পিচই নয় খোয়াও উঠে গেছে। শুধু যানবাহন নয়, পথচারীদের চলাফেরায়ও অসুবিধা হচ্ছে। প্রায় একই অবস্থা পুরো পৌর শহর জুড়ে। এমনকি পর্যটন স্পট কলাতলীর অলিগলিতে সড়কে জলাবদ্ধতা ও চলাচল অনুপোযোগী হয়ে পড়ে আছে। যার ফলে প্রতি বছর বর্ষার সময়ে এলাকার মানুষের দূর্ভোগ পোহাতে হয়। নির্বাচনের আগে কাউন্সিলর ও মেয়ররা সড়কটি পাকা করার প্রতিশ্রুতি দিলেও তাদের কথায় ছিড়া কখনো ভিজতে দেখা যায়নি। রাস্তা ঘাটের বেহাল অবস্থা দেখে অতটুকু ভাল লাগছেনা। ফলে অনেক ক্ষেত্রে চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়তে হচ্ছে। অথচ দেখার কেউ নাই।

 

লেখক :
কলামিষ্ট, সাহিত্যিক শিক্ষানবিশ আইনজীবি,
দক্ষিণ সাহিত্যিকাপল্লী, ০৬ নং ওয়ার্ড, পৌরসভা, কক্সবাজার।