নিবন্ধশিল্প ও সাহিত্য

ছাত্র-শিক্ষকের রসায়ন

শুভংকর বড়ুয়া 

মানুষ মানুষের জন্য
জীবন জীবনের জন্য
শিক্ষা সবার জন্য।
আমরা সৃষ্টির  শ্রেষ্ঠ জীব। আমাদের নৈতিকতাপূর্ণ কার্যাবলিকেই শিক্ষা এর মানবিক কার্যাবলি বলা হয়। এ কার্যাবলি গুলো সম্পূর্ণভাবে মানবীয় কল্যাণকর এবং মূল্যবোধ নির্ভর হয়।
কোরআনের বাণীতে, উপস্থাপন করা হয়েছে –
“তোমাদের জন্য সব কিছু সৃষ্টি করা হয়েছে শিখ, তবেই জানতে পারবে। ”
শিক্ষা সম্পর্কে মহানবী (সাঃ) বলেছিলেন-
” মূর্খতা এমন পাপ, সারাজীবন প্রায়শ্চিত্ত হয় না।”

শিক্ষার প্রধান উদ্দেশ্য হলো মানুষের প্রাণের মুক্তি। যে শিক্ষা মানুষের প্রাণকে সজীবতায় ভরে তোলে, কৃত্রিম বন্ধন-জাল থেকে মুক্ত করে মানুষকে প্রকৃত মানুষে রূপান্তরিত করে তাহাই শিক্ষা। শিক্ষা হতে হবে মুক্ত এবং আনন্দদায়ক। বৌদ্ধ সাহিত্যের “দিব্যাবদানমালা’র ‘পঞ্চকাবদান’ শীর্ষক নীতিগাথায় এইরুপ বর্ণিত আছে  প্রাচীনকালের শিক্ষা পদ্ধতি ছিলো অত্যন্ত কঠোর, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো তে আলো-বাতাস প্রবেশ নিষিদ্ধ ছিলো, শিক্ষার্থীরা “অর্থ না বুঝেই শাস্ত্র মুখস্থ করতো, ছাত্র-শিক্ষকের সম্পর্ক ছিলো পাঠদান আর শাস্তিদান এই দুটোর মধ্যেই সীমাবদ্ধ, অতঃপর এইসকল নিয়ম শৃঙ্খলা ভঙ্গ হয় পঞ্চক নামক এক বালকের হাত ধরে, সে সকল শৃঙ্খলা ভেঙ্গে দিয়ে শিক্ষাকে দেয় এক নতুন রূপ। এরই সুবাদে আজ আমরা মুক্ত আলো বাতাসে শিক্ষালাভ করতে পারি এবং বর্তমানে, ছাত্র-শিক্ষকের সম্পর্ক পরিণত হয়েছে বন্ধুত্বে। শিক্ষকরা কখনো পিতার ভূমিকা তো কখনো বন্ধুর ভুমিকায়।

কুতুপালং উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র সহকারি শিক্ষক (গণিত) আদিত্য বড়ুয়ার রাহুল, ওনার মতে ছাত্র শিক্ষকের মধ্যে শ্রদ্ধা ও বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক থাকলে সবচেয়ে ভালো। শিক্ষক সব সময় চাই ছাত্র মানুষের মত মানুষ হোক। শিক্ষক সব সময় আশা করে তার ছাত্র সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছাক এবং শিক্ষক গর্ববোধ করে।

কক্সবাজার কলেজের ছাত্র বিপ্লবের মতে, একজন ছাত্রের সাথে শিক্ষকের সম্পর্ক হতে হবে পাত্র ও পানির  স্বরুপ, কেননা পাত্র ছাড়া যেমন পানি সংরক্ষন সম্ভব নয়, তেমনি ছাত্র শিক্ষকের অবিচ্ছেদ্য অনিন্দ সুন্দর সম্পর্ক ব্যতীত জ্ঞানর্জন ও বিতরন অনিশ্চিত। উখিয়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রী ললিতার মতে, সুশিক্ষিত জাতি গঠন করতে গেলে সুশিক্ষিত, দক্ষ আর উৎসাহী শিক্ষকের প্রয়োজন। কুতুপালং উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র শিশিরের মতে, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে একটা ভালো সম্পর্ক থাকতে হবে। এতে করে শিক্ষার্থী পড়ালেখায় মনোযোগ হয়ে পড়বে। সরকারি বিজ্ঞান কলেজের ছাত্র সিয়াম এর মতে, একজন ছাত্র হিসাবে ভালো মনের শিক্ষক চাই, যার মাধ্যমে সুচরিত্র গঠন করব।
পরিশেষে বলতে চাই,
বিজয়ের জন্য সুশিক্ষা
ব্যবহারের জন্য সুশিক্ষা
প্রজ্ঞার জন্য সুশিক্ষা
এই সব কিছুর মুল নায়ক আর্দশ শিক্ষক। একটা উদাহরণ দিয়ে ইতি টানলাম–
কালি ছাড়া যেমন কলম মূল্যহীন ঠিক তেমননি ছাত্রের জীবন শিক্ষক ছাড়া অচল। কলমের সাথে কালির সম্পর্কের মত ছাত্র শিক্ষক সম্পর্ক অটুট থাকুক।

ছাত্র-শিক্ষকের  রসায়ন: পর্ব- ১

লেখক: প্রভাষক, রসায়ন বিজ্ঞান,
সরকারি বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মহিলা কলেজ, উখিয়া, কক্সবাজার।

 

রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।