টেকনাফ

টেকনাফে বিপুল পরিমাণ ইয়াবা ও নগদ টাকাসহ ইউপি সদস্য গ্রেপ্তার

সংগৃহীত ছবি

রাইজিং কক্স ডেস্ক : টেকনাফে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত ইয়াবা গডফাদার ও হোয়াইক্যং ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান জাহিদ হোসেন (৪০) নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সে উপজেলার হোয়াইক্যং ইউপির ৮ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য এবং মহেশখালীপাড়া বাসিন্দা মৃত আবদুস সাত্তারের ছেলে।

স্বরাস্ট্রমন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত ইয়াবা গডফাদার হিসেবে তার নাম ৬১ নম্বরে রয়েছে।এ সময় তার কাছ থেকে ২০ হাজার ইয়াবা বড়ি ও পুলিশের নাম ভাঙ্গিয়ে মামলা থেকে বাদ দেওয়ার কথা বলে আদায় করা দুই লাখ ৪০ হাজার নগদ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। শনিবার বিকেল তিনটায় হোয়াইক্যং ইউনিয়নের মহেষখালীয়াপাড়া তার বসত বাড়ি থেকে ২০হাজার ইয়াবা বড়ি ও নগদ ২ লাখ ৪০ হাজার নগদ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে।

এদিকে জানা যায়,গত ২৯ ডিসেম্বর তারিখে পূর্বশক্রতার জের ধরে স্থানীয় বাসিন্দা মনছুর আলম(৩২) নামে একটি ব্যক্তি হত্যার উদ্দ্যেশে কোপ দিলে সে মারাত্মক আহত হয়।পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সে মারা যান।পরে এ ঘটনায় থানায় মামলা রুজু করা হয়।ওই মামলায় আসামি না করার কথা বলে জাহিদ হোসেন এক লাখ টাকা দাবী করেন।অন্যতাই মামলার আসামি করা হবে বলে হুমকি দেন।এরপর ৪০হাজার টাকা আদায় করেন।এরপর সিরাজুল মোস্তফা বাদী হয়ে টেকনাফ থানায় জাহিদ হোসেনের বিরুদ্ধে একটি এজাহার দায়ের করেন। সিরাজুল মোস্তফা বলেন,আমি নই আরও কয়েকজনের কাছ থেকে জাহিদ হোসেন পুলিশের নাম ভেঙ্গে টাকা আদায় করেছেন।

টেকনাফ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, গোপন তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশ জানতে পারে,হোয়াইক্যং ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান জাহিদ হোসেনের বাড়িতে ইয়াবার একটি চালান মজুদ করা হয়েছে। তারই সূত্র ধরে, পুলিশের একটি দল অভিযানে যায়। এসময় বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে ২০ হাজার ইয়াবাড়ি ও ২ লাখ ৪০হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়। ওই সময় বাড়ির গৃহকর্তা উপস্থিত ছিলেন না। বিকেল পাঁচটার দিকে টেকনাফ বাস ষ্টেশন এলাকা থেকে জাহিদ হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

তিনি আরো বলেন, গ্রেপ্তার ব্যক্তির বিরুদ্ধে ইয়াবা ও পুলিশের নাম ভাঙিয়ে টাকা আদায়ের মামলা রুজু প্রক্রিয়া চলছে। তাকে রবিবার কক্সবাজার বিজ্ঞ আদালতে পাঠানো হবে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন