খেলাধুলাপ্রধান সংবাদ

ফুটবলারের জন্য ১ লাখ ডলার পুরষ্কার ঘোষণা করল বাফুফে

বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের একাংশ । ছবি: সংগৃহীত

ক্রীড়া ডেস্ক, রাইজিং কক্স : দেশে অনুষ্ঠিত সবচেয়ে বড় ফটবল আসর বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল চ্যাম্পিয়ন হলে তাদেরকে ১ লাখ ডলার বোনাস দেয়া হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন বাফুফে সভাপতি কাজী মোহাম্মদ সালাউদ্দিন। রানার্সআপ হলে পাবে ৫০ হাজার ডলার।

সদ্য সমাপ্ত সাউথ এশিয়ান (এসএ) গেমসেও ফুটবলারদের জন্য লোভনীয় বোনাস ঘোষণা করেছিল বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। কিন্তু নেপালকে হারিয়ে বোনাসের ঘোষিত সেই অর্থ (৫০ হাজার মার্কিন ডলার) নিজেদের করে নিতে পারেননি জামাল ভূঁইয়ারা। বোনাস ঘোষণার পরেও সর্বশেষ এসএ গেমসে ভরাডুবি হয় লাল-সবুজ দলের। তবে পেছনের ব্যর্থতা ঝেড়ে এগিয়ে যাওয়াটাই এখন লক্ষ্য। এসএ গেমসে বাজে ফল ভুলিয়ে দিয়ে বঙ্গবন্ধু কাপে নিজেদের প্রমাণ করতে চান ফুটবলাররা। তাদের এই প্রমাণের মঞ্চে আবারো রসদ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে বাফুফে।

টিম হোটেলে দলকে উৎসাহ দিতে গিয়ে গতকাল তিনি এ ঘোষণা দেন। টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ফিলিস্তিনের বিপক্ষে খেলবে স্বাগতিক বাংলাদেশ। ছয় জাতির এই টুর্নামেন্টে প্রতিদিন একটি করে ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। প্রতিটি ম্যাচ শুরু হবে বিকাল ৫টায়। টুর্নামেন্টের ‘এ’ গ্রুপে বাংলাদেশের সঙ্গী ফিলিস্তিন ছাড়াও রয়েছে শ্রীলঙ্কা।

বাফুফের এই বোনাস ঘোষণাকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন জাতীয় দলের অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া। তার মতে বাফুফের এই বোনাস ফুটবলারদের আরো ভালো খেলতে অনুপ্রেরণা যোগাবো।

জাতীয় দলের অনুশীলনের ফাঁকে এবারের টুর্নামেন্ট নিয়ে বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেন, আমাদের প্রথম টার্গেট সেমিফাইনাল নিশ্চিত করা। সেটা করতে হলে আমাদের ফিলিস্তিনের বিপক্ষে হারলে চলবে না। পাশাপাশি শ্রীলঙ্কাকেও হারাতে হবে। গুরুত্বপূর্ণ দুই ম্যাচে তপু বর্মণের ফেরায় স্বস্তিবোধ করছেন জামাল ভূঁইয়া। বর্তমান সময়ে বাংলাদেশের অন্যতম সেরা ডিফেন্ডার তপু। রক্ষণভাগ সামলে ওপরে উঠে গিয়ে গোল করতেও জানেন। গত বছরের সেপ্টেম্বরে ঘরের মাঠে অনুষ্ঠিত সাফ ফুটবলের প্রথম দুই ম্যাচে ভুটান ও পাকিস্তানের বিপক্ষে গোল করেছিলেন এই সেন্টারব্যাক। চোটে পড়ার আগে কম্বোডিয়ার বিপক্ষে শেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছিলেন। ভিয়েনতিয়েনে ১-০ গোলের জয়ের ম্যাচে দুর্দান্ত খেলেছিলেন নারায়ণগঞ্জের সেন্টারব্যাক। তাঁর ফিরে আসাটা অধিনায়ক জামালের জন্য স্বস্তির হবে এটাই স্বাভাবিক, ‘সবাই জানে তপু বাংলাদেশের সেরা ডিফেন্ডার। ও দলে ফিরে আসাটা আমাদের জন্য স্বস্তির। সে অভিজ্ঞ, সে জানে কীভাবে বড় দলগুলোর বিপক্ষে খেলতে হয়। আশা করি ওর ফিরে আসাটা দলের জন্য খুবই ভালো হবে।’ জাতীয় দলে ফিরলেও তপুর একাদশে খেলাটা চূড়ান্ত নয়। সুযোগ পেয়ে রিয়াদুল হাসান ও টুটুল হোসেন ভালো খেলেছেন। বিশেষ করে রিয়াদুলের প্রশংসা তো সবার মুখে মুখে। তাই তপুর একাদশে ফিরে আসাটা কঠিনই হবে, ‘অনুশীলনে যে ভালো করবে, সেই একাদশে খেলবে। এখনো বলা যাচ্ছে না কারা একাদশে খেলতে যাচ্ছে।’ লড়াই করে ফেরার ব্যাপারে আশাবাদী তপু, ‘জাতীয় দলে ফেরার জন্য অনেক পরিশ্রম করেছি। আমি মনে করি আগের মতোই ফিট আছি। এখন পারফরম্যান্স করেই জাতীয় দলের একাদশে ফিরতে চাই।’ তপু নিজে একাদশে থাকুন না থাকুন তার ভাবনায় টুর্নামেন্টের ফাইনাল। আর ফাইনাল নিশ্চিতে বাফুফের বোনাস ঘোষণা টনিক হিসেবে কাজ করবে বলে মনে করেন বসুন্ধরা কিংসের এই ফুটবলার। তার বিশ্বাস সকলের অনুপ্রেরণায় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ এবার ভালো করবে।