কবিতাশিল্প ও সাহিত্য

ফের যদি আসিস তবে

ওমানা পারভীন শিলা

ফের যদি আসিস তবে!
মানুষ রুপেই আসিস ফিরে,
অন্য রুপে চাইনা তোকে।

যদি বলিস আসবি ফিরে
দেখবি আছি ঠাঁই দাঁড়িয়ে
হাজার বছর এমনি রবো,
তোর অপেক্ষায় সুখ কুরোব।

ফের যদি আসিস তবে!
পথের ধারে নদীর বাঁকে
অথবা কোন লোকালয়ে
মিলব মোরা আবার দুজন।

মন কেমনের দিন গুলো সব
ভাসিয়ে দেব বানের স্রোতে।
সন্ধে হলেই বসব দুজন
বেলকোনির ঐ কোণটা ঘেঁষে,
জোছনা মাখা চাঁদের আলোয়
দেখব তোকে আপন ভুলে।
একটা-দুটো খসবে তাঁরা
ইচ্ছে গুলো পাগল পাড়া।

ফের যদি আসিস তবে!
দেখিস আমার হৃদয় খুঁড়ে,
তোর গড়া সেই ছোট্ট ঘরে
আজও কেমন প্রদীপ জ্বলে,
তোর নামেরই জোনাক বাতি
জ্বলে নিভে সারা রাতি।
তোর দেওয়া সেই চিঠিটা
কেমন রেখেছি যত্ন করে।

ফের যদি আসিস তবে!
যেমন করে সূর্য হাসে নীল আকাশে
ঝর্ণা ঝরে পাহাড় ঘেঁষে,
যেমন করে নদী এসে
মিশে যায় মোহন জলে!
তেমনি করেই আমার হবি।

কথা না রাখার সেই অসুখটা
আবার যদি আনিস সাথে
দেখবি কেমন গোল বাঁধাব।
আছি কি আর আগের মতো!?
নীরব হয়ে সব সয়ে নেব।

ফের যদি আসিস তবে
তোর বুকেরই পাঁজর হবো!
পাথর বুকে জল ঝরাব
শীতল জলের ছোঁয়া দিয়ে
দেখিস কেমন ফুল ফোঁটাব।
তোর পথেরই ছাঁয়া হব,
তোর মনেরই মায়া হব।

তুই না ভারি দস্যি ছিলি!
মিছেই কেমন রাগ দেখাতি,
আবার যদি রাগিস অমন
ঢং করে তোর রাগ ভাঙাব।
চাপা রঙের বৌ শাড়িতে
দেখবি কেমন সেজে রবো।

ফের যদি আসিস তবে
মানুষ রুপেই আসিস ফিরে,
তোর বুকেরই পরশ মেখে
সারিয়ে নেব সকল ক্ষত।