বাংলার বিজয় নিশান

ওমানা পারভীন শিলা

লাখ শহীদের রক্ত শোণিত সাগর পেরিয়ে উচ্চ করে শির
লাল সবুজের বিজয় নিশান উড়ছে অনাবিল।
৭ই মার্চের রক্তে আগুন জ্বালাময়ী সে ভাষন
যা কিছু আছে তাই নিয়ে করো মোকাবেলা
শোধ করতে হবে মাতৃ ভূমির ঋণ।
তনু মনে উঠলো জেগে বিজয়ের-ই খেদ
ছিনিয়ে আনবে বিজয় নিশান
এটাই ছিল জেদ।

জন্ম নিয়েছে হাজার দ্রোহী বীর বিক্রম
রফিক, শফিক,জব্বার, সফিউর
আরো কতো নাম।
প্রাণের বাংলা সোনার বাংলা আমার বাংলাদেশ
পারেনিতো কেড়ে নিতে শত্রু হানাদার – অ,আ,ক,খ এর অধিকার।
হায়নার থাবা বিষদাঁত ভেঙে
সাতকোটি বাঙালি এনেছে ফিরিয়ে রক্তিম সূর্যদ্বয়।

নয় মাস ধরে লাশের গন্ধ
বাংলার পথে প্রান্তরে
জ্বলেছে গ্রাম জ্বলেছে বাড়ি
জ্বলেছে আগুন বাংলার ঘরে-ঘরে।
রাজাকার আলবদর শকুনির দল কেড়ে নিয়েছে প্রিয় বোনের শাড়ি, রক্তে ভিজেছে মায়ের আঁচল বাবার পাঞ্জাবী।
মৃত মায়ের বক্ষ জুড়ে
ক্ষুধাত্র শিশুর হাহাকার
পান করছে দুগ্ধ তবুও, করেছে চিৎকার।
রক্ত প্লাবনে ভেসেছ বীরাঙ্গনা
স্তব্ধ হয়েছে পদ্মা,মেঘনা,যমুনা,করতোয়া।

কৃষকের দেশ কবির দেশ
তারা কি অস্ত্র ধরতে জানে?
দেখিয়ে দিয়েছে বাঙালি
তাদের ও রক্তে আগুন জ্বলে।
কৃষকের হাতে উঠেছে রাইফেল
কবির হাতে বুলেট
ছাত্র শিবির উঠেছে জেগে
বুকেতে বেঁধেছে গ্রেনেড।
কে আর রুখতে পারে!
বারুদের গন্ধে ভাঙবে এবার
হায়নার পিঞ্জর।
ঘুমিয়ে পড়েছে বিশ্ব যখন
ঘুমিয়ে পড়েছে জাতী
নীল কমলের দল পাহাড়ায় জেগেছে সারাদিন-সারারাতি।

ছিনিয়ে এনেছে স্বাধীনতা
ছিনিয়ে এনেছে মুক্তি।
লক্ষ প্রাণের বিনিময়ে
বাংলা পেয়েছে স্বস্তি।
বিষাদের আকাশে উঠেছে
বেজে বিজয়ের সুর
আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি।
১৬ ডিসেম্বর গোধূলি লগ্নে
উচ্চ করে শির লাল সবুজের উড়িয়ে নিশান এনেছে ফিরিয়ে
বাঙালির প্রাণ নাতুন বাংলাদেশ।

বিজয় দিয়েছে এনে
মুক্ত বাতাসে প্রাণ খুলে কথাবলা
প্রিয়ার হাতে-হাত রেখে পথচলা।
জোয়ার ভাটায় নদীর সুরের কলতান
মুক্তির আনন্দে মাঝির ভাটিয়ালি গান।
দূরন্ত শিশুর মহা মুক্তির উচ্ছ্বাসে ছুটে চলা
বোনের আদর,ভাইয়ের শাসন
বাবার স্নেহ, মায়ের মমতার বাহুডোর।
যতদিন বাঙালির দেহে শ্বাস-প্রশ্বাস আছে বহমান
ছিনিয়ে আনবে বিজয় নিশান
ছিনিয়ে আনবে জয়
বাংলা চিরকাল রবে অখন্ডিত অক্ষয়।

রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।