বন্দর নগরীশিক্ষাঙ্গন

বিশ্বসভ্যতার ইতিহাসই মানবাধিকার অর্জনের ইতিহাস: ড. অনুপম সেন

বক্তব্য রাখছেন উপাচার্য ড. অনুপম সেন। ছবি: সংগৃহীত

প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি সংবাদদাতা, চট্টগ্রাম : আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন সমাজবিজ্ঞানী ও শিক্ষায় একুশে পদকপ্রাপ্ত প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেন বলেন, বিশ্বসভ্যতার সূচনা প্রায় দশ হাজার বছর আগে মেসোপটেমিয়ায়।

এটাই আদিতম সভ্যতা। সভ্যতার বিকাশ হয়েছে প্রথমে মেসোপটেমিয়া, তারপর মিশর, তারপর চীন, তারপর এই উপমহাদেশ ও পারস্যে। বস্তুত সভ্যতার ইতিহাসই মানবাধিকার অর্জনের ইতিহাস, শ্রেণি সংগ্রামের ইতিহাস, স্বাধীনতা বিকাশের ইতিহাস।

আজ ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, সকাল ১১ টায় নগরীর হাজারী লেইনস্থ প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি ভবনে আইন বিভাগের এলএলএম ২৪ ও ২৫তম ব্যাচের উদ্যোগে ‘আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস-২০১৯’ উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, পৃথিবীতে কালে কালে নানাভাবে মানুষের অধিকার হরণ করা হয়েছে। প্রাচীন গ্রীক ও রোম সাম্রাজ্যে দাসপ্রথা, ইউরোপে ভূমিদাসপ্রথা ও আমেরিকা-যুক্তরাষ্ট্রে ক্রীতদাসপ্রথার মাধ্যমে মানুষের অধিকার হরণ করা হয়। আমাদের দেশে পরাধীনতার মাধ্যমে শতাব্দীর পর শতাব্দী মানুষ তাদের যাবতীয় অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়েছে। ১৭৫৭ সালে ইংরেজরা এদেশ ও এদেশের মানুষকে পরাধীন করে। তারপর তারা মাত্র তিন বছরের মধ্যে এদেশ থেকে তৎকালীন ৫০০ কোটি পাউন্ডের সম্পদ ইংল্যান্ডে পাচার করে। এটা ছিল ইংল্যান্ডের জন্য আদি পুঁজি। ১৭৬০ দশকে এই আদি পুঁজির মাধ্যমে ইংল্যান্ডে শিল্পবিপ্লব শুরু হয়।

তিনি ফরাসী বিপ্লবের কথা উল্লেখ করে বলেন, ১৭৮৯ সালের ১৪ জুলাই ফরাসী বিপ্লব সংঘটনের পরে ৪ঠা আগস্ট সেখানে রাষ্ট্রীয়ভাবে ‘ডিক্লারেশন অফ দ্য রাইটস অফ ম্যান’ শীর্ষক ঘোষণায় বলা হয়, ‘সব মানুষই সমান’। বস্তুত মানবাধিকারের ক্ষেত্রে এটাই বড়ো কথা।
আইন বিভাগের চেয়ারম্যান তানজিনা আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে এ-অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির প্রক্টর আহমদ রাজীব চৌধুরী ও সহকারী অধ্যাপক অনুপ কুমার বিশ্বাস। সঞ্চালনায় ছিলেন বিভাগের প্রভাষক জাবেদ আরাফাত।

উল্লেখ্য, আইন বিভাগের এলএলএম-এর শিক্ষার্থীরা মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে শিক্ষকদের তত্ত্বাবধানে মানবাধিকারের বিভিন্ন দিক নিয়ে, যথা, শ্রম অধিকার, শিশু অধিকার, নারী অধিকার, ব্যক্তি স্বাধীনতার অধিকার, আইনের সুরক্ষা পাওয়ার অধিকার, ব্যক্তিগত মতামত প্রকাশের অধিকার, শিক্ষার অধিকার, কর্মের অধিকার ইত্যাদি নিয়ে একটি চমৎকার ৬ পৃষ্ঠার দেয়ালিকা প্রকাশ করে, যা ব্যক্তিকে অধিকার সচেতন করার জন্য অনন্য দলিল হিসেবে বিবেচিত হতে পারে। শেষে প্রধান অতিথি উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেন দেয়ালিকাটি ঘুরে দেখেন।

অনুষ্ঠানে আইন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষিকা ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।