বিসিবি’র প্রস্তুতিতে মুগ্ধ ওয়েস্ট উইন্ডিজ পর্যবেক্ষক দল

ক্রীড়া ডেস্ক, রাইজিং কক্স : মহামারি করোনার এই সময়ে আন্তর্জাতিক সিরিজ আয়োজনে টাইগার ক্রিকেট প্রশাসন কতটা প্রস্তুত তা দেখতে বাংলাদেশ সফর করছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ডের দুই সদস্যের পর্যবেক্ষক দল। ৫ দিনের এই সফরের তিন দিন তারা সিরিজের ভেন্যুগুলো পরিদর্শন করেছেন। বিসিবি’র কোভিড নিয়ন্ত্রন ব্যবস্থাপনা, ভেন্যুর সুবিধাদি ও দলের নিরাপত্তাসহ সংশ্লিষ্ট নানান বিষয়াদিও পর্যবেক্ষণ করেছেন তারা। পর্যবেক্ষণ শেষে জানালেন, সিরিজ উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সার্বিক প্রস্তুতিতে রীতিমত মুগ্ধ।

সফরের অংশ হিসেবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক ড. অক্ষয় মানসিং ও নিরাপত্তা ম্যানেজার পল স্নোয়ি ৩০ নভেম্বর পরিদর্শন করেছেন বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান-বিকেএসপি। পরদিন অর্থাৎ ১ ডিসেম্বর গিয়েছেন চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম পরিদর্শনে। আর সবশেষ ভেন্যু হিসেবে আজ পরিদর্শন করলেন হোম অব ক্রিকেট মিরপুর শের ই বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম। শুধু তাই নয় সিরিজের দুই নগরী ঢাকা ও চট্টগ্রামের দুই হাসপাতালও তারা দেখে এসেছেন। তিন ভেন্যু ও হাসপাতাল পরিদর্শন শেষে পর্যবেক্ষকদের দল জানালেন বিসিবি’র প্রস্তুতিতে তারা দারুণ সন্তুষ্ট।

বুধবার (২ ডিসেম্বর) বিকেলে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড প্রাঙ্গনে সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে একথা জানান ড. অক্ষয় মানসিং।

‘ঢাকা এবং চট্টগ্রামে আমরা যা দেখেছি তা নিয়ে আমরা সন্তুষ্ট। এখানে সুযোগ-সুবিধা দারুণ, কোভিড প্রোটোকল অত্যন্ত স্পষ্ট এবং নিখুঁত। যে হাসপাতাল এবং হোটেলগুলোয় আমরা গিয়েছি, সেগুলোর আচরণ ও কাজ কোভিড-১৯ এর জন্য সুপারিশ করা আন্তর্জাতিক মানের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ। সুতরাং, স্বাস্থ্যগত দিক থেকে আমরা খুবই খুশি। এখন আমাদেরকে আমাদের পর্যবেক্ষণগুলো ক্রিকেট ওয়েস্ট ইন্ডিজের বোর্ড অফ ডাইরেক্টরসের কাছে উপস্থাপন করতে হবে।’

এদিকে পূর্ণাঙ্গ সিরিজটি উপলক্ষ্যে প্রায় এক মাস আগে উইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ডকে বায়ো বাবল পরিকল্পনা পাঠিয়েছিল আয়োজক বিসিবি। যা তাদের খুবই মনে ধরেছে বলে জানালেন ড. অক্ষয়।

‘আমরা এখানে আসার আগে বেশ কিছু মিটিং করেছি এবং বিসিবির প্রোটোকল সম্পর্কে শুনেছি যা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। আমরা খুবই আত্মবিশ্বাসী যে, আমরা যা দেখেছি, তা বিশ্বের যেকোন জায়গার বিসিবি আমাদেরকে প্রোটোকলসমূহের যে বর্ণনা দিয়েছে, সেগুলো অত্যন্ত গভীর চিন্তার পরিচয় দেয়। এবং যেহেতু আমাদের আসার আগে তাদের তিনটি টুর্নামেন্ট হয়েছে এবং একটি হচ্ছে, সুতরাং তারা অভ্যস্ত। আয়োজনের চেয়ে কম নয়। এখন পর্যন্ত আমরা খুবই খুশি।’

অবশ্য শুধু কোভিড নিয়ন্ত্রন বা ভেন্যু ব্যবস্থাপনাই নয়। সিরিজে সফরকারী দলটির জন্য বিসিবি যে নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছে তাতেও তারা মুগ্ধ বলে জানালেন নিরাপত্তা ম্যানেজার পল স্নোয়ি।

‘আমার প্রাথমিক কাজ ছিলো আগামী জানুয়ারিতে প্রস্তাবিত সিরিজটির নিরাপত্তার বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করা। এটি বলতে পেরে আমি খুশি যে, আমি যা দেখেছি, সেখানে আমাদের কাছে উপস্থাপন করা নিরাপত্তা পরিকল্পনা এবং প্রোটোকলগুলো খুবই সন্তোষজনক। আমার কোন সন্দেহ নেই যে সেই পরিকল্পনাগুলো যেভাবে লেখা হয়েছে এবং আলোচনা করা হয়েছে সেভাবে প্রয়োগ করা হয়, তাহলে কোন ধরণের অপ্রিয় ঘটনা ঘটবে না। আমি পুরো আয়োজনের ওপর অত্যন্ত খুশি, এয়ারপোর্ট, হোটেল, প্র্যাকটিস ভেন্যু থেকে ম্যাচের ভেন্যু সবকিছু নিয়ে।’

৫ দিনের সফর শেষে আগামীকাল (৩ ডিসেম্বর) দেশের বিমান ধরবেন এই দুই পর্যবেক্ষক।

প্রসঙ্গত, আইসিসি’র এফটিপি (ফিউচার ট্যুর প্ল্যান) অনুযায়ী ২০২১ সালের জানুয়ারিতে অনুষ্ঠেয় এই সিরিজে স্বাগতিক বাংলাদেশের বিপক্ষে ক্যারিবিয়ানদের তিনটি টেস্ট, সমান সংখ্যক ওয়ানডে ও ২টি টি টোয়েন্টি খেলার কথা রয়েছে। তবে করোনাকালে স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টি বিবেচনায় রেখে সিরিজের দৈর্ঘ্য কমাতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড একটি টেস্ট ম্যাচ কমানোর প্রস্তাব দিয়েছে। যদিও তা এখনো চূড়ান্ত হয়নি।

রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।