জাতীয়প্রধান সংবাদ

বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদ সূচকে ৬ ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ

সংগৃহীত ছবি

রাইজিং কক্স ডেস্ক : বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদ সূচকে আগের বছরের তুলনায় ছয় ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ। অস্ট্রেলিয়ার সিডনিভিত্তিক থিঙ্কট্যাঙ্ক ইন্সটিটিউট ফর ইকোনমিকস অ্যান্ড পিস প্রকাশিত ‘গ্লোবাল টেরোরিজম ইনডেক্স-২০১৯’-এ ১৬৩টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ৩১তম।

আগের বছর এই অবস্থান ছিল ২৫তম। সন্ত্রাসবাদ দমনে দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে সফলতা দেখিয়েছে বাংলাদেশ।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৮ সালে বাংলাদেশে ৩১টি সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে। এতে প্রাণ হারায় সাতজন। ২০১৭ সালের তুলনায় সন্ত্রাসী হামলায় নিহতের পরিমাণ কমেছে ৭০ শতাংশ। ওই বছর আটটি সন্ত্রাসী সংগঠন হামলা পরিচালনা করেছিল।

এর মধ্যে পাঁচটি সংগঠনই ২০১৮ সালে কোনো হামলা পরিচালনা করেনি। জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ দমনে সরকারের কঠোর নীতি বেশ কাজে এসেছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। মূলত ২০১৬ সালে ঢাকার গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার পর সন্ত্রাসবাদ দমনে কঠোর হয় বাংলাদেশ। সরকার এ ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করে। দেশের অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব দ্রুত কাটিয়ে ওঠে। এর ফলে সূচকে এমন উন্নতি। এবার সূচকে মোট ১০ স্কোরের মধ্যে ৫ দশমিক ২০৮ পেয়েছে বাংলাদেশ।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দক্ষিণ এশিয়ায় সন্ত্রাসবাদ দমনে বাংলাদেশের উন্নতি হয়েছে সবচেয়ে বেশি। এ ছাড়া ভুটান (১৩৭), নেপাল (৩৪) ও শ্রীলংকাও (৫৫) বেশ উন্নতি করেছে। ভারত (৭) ও পাকিস্তান (৫) কিছুটা উন্নতি করলেও সার্বিক অবস্থান এখনও উদ্বেগজনক।

৯ দশমিক ৬০৩ স্কোর নিয়ে সন্ত্রাসবাদকবলিত দেশের তালিকায় শীর্ষে রয়েছে আফগানিস্তান। এরপরই আছে ইরাক, নাইজেরিয়া ও সিরিয়া। ২০১৮ সালে বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাসবাদী হামলা ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কমলেও এই দেশগুলোতে তা বেড়েছে। বলা হয়েছে, সন্ত্রাসবাদ দমনে বিশ্বের ১০টি দেশের মধ্যে নয়টিই উন্নতি করেছে।

সন্ত্রাসবাদ সূচকে বাংলাদেশের চেয়েও খারাপ অবস্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র (২২) ও যুক্তরাজ্য (২৮)। এ ছাড়া মিয়ানমার ২৬তম ও সৌদি আরব ৩০তম অবস্থানে রয়েছে। গত বছর সন্ত্রাসবাদী কোনো কার্যক্রম ঘটেনি ২৬টি দেশে। শূন্য স্কোর নিয়ে দেশগুলো একসঙ্গে সর্বশেষ ১৩৮তম অবস্থানে রয়েছে। এই তালিকায় সিঙ্গাপুর, পর্তুগাল, উত্তর কোরিয়া, ওমানের মতো দেশ রয়েছে। শূন্য দশমিক ০১ স্কোর নিয়ে এদের পরেই আছে ভুটান।