কবিতা

“ব্যথিত পথিক”

রফিকুল ইসলাম রাইসুল। ফাইল ছবি

-রফিকুল ইসলাম রাইসুল

বুকের সবখানি সুখ,
মুখে লেগে থাকা উচ্ছ্বাসিত হাসি,
পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে জন্মানো নিবদ্ধ অভিলাষ,
সবটুকুই গেলো উড়ে।
আমি কিছুই ধরতে পারছি না,
সর্বদিকে যেন হুড়মুড় তড়বড়ে।
এমন বিষাদের কি যে বেশুমার যন্ত্রণা?
ব্যাখ্যা আখ্যা দিতে আমার নেই কোন নিজস্ব শব্দ বা বর্ণ, নেই কোন সঙ্গতি মন্ত্রণা।
তবে আমার প্রমত্ত উত্তেজনার রাজসাক্ষী!
চারিদেয়ালে ঘেরা স্যাঁতসেঁতে শয়ন কক্ষ,
আমার উষ্কখুষ্ক মাদুর,ভেজা বালিশ,
জট বাঁধানো সমস্ত অঙ্গমর্দন করা কলেবর।
সময়ের স্ব-উদ্যম পরিস্থিতির প্রতীক্ষায়!
অার্তনাদের স্মৃতিরা করিবে চিৎকার,
শক্ত জবাব দিবে হৃদয় ভাঙা প্রতারণার।

এই ভালোবাসাহীন পৃথিবীর বুকে,
কতশত মানুষ কষ্টের ভোজে বেঁকে যায় ধুঁকেধুঁকে।
হৃদয় ভাঙার জলন্ত অভিশাপে,
প্রেমবাজারের সবখানি মানুষ ঝলসে গিয়ে থেমে যাবে বোঝার পাপে।
আমাকে ভর করা কঠিন হতাশের স্লোগানকে ছুটি দিয়ে, করে দিলাম ভবঘুরে।
অসীম সাহস নিয়ে বলতে হয় সুরাসুরে।

এই তো আছি বেশ,
মনে-বুকে নেই কোন বিমর্ষ রেশ।
জীবন চলে জীবনের গানে,
ছুটে চলি অন্তর্নিহিত স্বপ্নের পানে।
ধূলোমাখা পথে,প্লাবিত মাঠেঘাটে,
ক্লেশিত কংক্রিটের শহরে,
কোমল লোকালয়ে তল্লাশ করি,
প্রলম্বিত সুখের টানে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন