ভাসানচরের পথে আরও ১৭১৬ রোহিঙ্গা

উখিয়া ডিগ্রি কলেজ মাঠের অস্থায়ী ট্রানজিট ক্যাম্প থেকে তোলা । ছবি : রাইজিং কক্স
নিজস্ব প্রতিবেদক : রোহিঙ্গা স্থানান্তর প্রক্রিয়ায় ষষ্ঠ দফায় দ্বিতীয় দিনে কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফের বিভিন্ন ক্যাম্প থেকে স্বেচ্ছায় ১ হাজার ৭শ ১৬ জন রোহিঙ্গা নোয়াখালীর ভাসানচরের পথে রওনা হয়েছে।

বুধবার (৩১ মার্চ) দুপুর, বিকেল ও সন্ধ্যায় ৩১ বাসে মোট ১ হাজার ৭শ ১৬ জন রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ও শিশু নিয়ে উখিয়া ডিগ্রি কলেজ মাঠ থেকে চট্টগ্রামের বিএন শাহীন কলেজের ট্রানজিট ক্যাম্পের পথে রওনা হয়। এ সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ২ টি গাড়ি, ২ টি অ্যাম্বুলেন্স, ২ টি প্রটেকশন গাড়ি, ২ টি খালি বাস এবং ১১ টি কার্গোভ্যান যেতে দেখা যায়।
এর আগে, উখিয়া-টেকনাফের বিভিন্ন রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে ভাসানচর যেতে ইচ্ছুক রোহিঙ্গাদের নিবন্ধন শেষে উখিয়া ডিগ্রি কলেজ মাঠের অস্থায়ী ট্রানজিট ক্যাম্পে আনা হয়। একইভাবে মঙ্গলবার (৩০ মার্চ) ২ হাজার ৫ শত ৫৫ জন রোহিঙ্গাকে চট্টগ্রামের বিএন শাহীন কলেজের ট্রানজিট ক্যাম্পে নিয়ে যাওয়া হয়।
সূত্র জানায়, ষষ্ঠ দফায় ভাসানচরের পথে রওনা হওয়া রোহিঙ্গারা রাতে চট্টগ্রামের বিএন শাহীন কলেজের ট্রানজিট ক্যাম্পে পৌঁছাবেন। সেখান থেকে তাদের সুবিধাজনক সময়ে বাংলাদেশ নৌ-বাহিনীর তত্ত্বাবধানে জাহাজে করে ভাসানচরে নেওয়া হবে।
শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনের অতিরিক্ত কমিশনার শামসুদ্দৌজা জানান, কয়েক ধাপে এখন পর্যন্ত প্রায় ১৫ হাজারের মতো রোহিঙ্গা ভাসানচরে গিয়েছে। এই দফায় আড়াই হাজারের মতো রোহিঙ্গা ভাসানচর যেতে রাজি হয়েছে। যারা যেতে ইচ্ছুক তাদের নিবন্ধনের মাধ্যমে ধাপে ধাপে ভাসানচর নেওয়া হবে। এভাবে পর্যায়ক্রমে এক লাখ রোহিঙ্গাকে নেওয়া হবে ভাসানচরে।
উল্লেখ্য, এই প্রক্রিয়ায় গত ৪ ডিসেম্বর থেকে শুরু করে এই পর্যন্ত ১৫ হাজারে মতো রোহিঙ্গা ভাসানচর গিয়েছে। এছাড়া এরও আগে অবৈধভাবে সাগরপথে মালয়েশিয়া যেতে ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসা ৩০৬ জন রোহিঙ্গাকে গত বছরের মে মাসে ভাসানচরে নেওয়া হয়।
রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।