চতুর্থ দফায় স্বেচ্ছায় ভাসানচর গেল ৩০২৩ রোহিঙ্গা!

ফাইল ছবি

রাইজিং কক্স প্রতিবেদক : স্বেচ্ছায় চতুর্থ দফায় দু’দিনের ব্যবধানে ভাসানচরের পথে ৩ হাজার ২৩জন রোহিঙ্গা। চতুর্থ দফায় ১৪ ফেব্রুয়ারি প্রথম দিন দুপুর ১২টায় ৩৯টি বাসে ২০১৪ জন রোহিঙ্গা ও ১৫ ফেব্রুয়ারি দুপুরে ২২ টি বাসে ১০০৯জন রোহিঙ্গা ভাসানচরের উদ্দেশ্যে উখিয়া কলেজের অস্থায়ী ট্রানজিট ক্যাম্প ত্যাগ করে।

রোহিঙ্গাদের বিশাল বহরের সামনে ও পেছনে পুলিশের কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা রয়েছে। চার দফায় স্বেচ্ছায় রোহিঙ্গা ক্যাম্প ত্যাগ করেছেন ৯হাজার ৬৭০জন রোহিঙ্গা।

রোহিঙ্গা মাঝিরা জানান, স্বেচ্ছায় রাজি হয়ে রোহিঙ্গারা ভাসানচর গিয়ে সেখানকার পরিবেশ, থাকা খাওয়ার সুবিধা উখিয়া-টেকনাফের ক্যাম্পে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের জানালে যারা যেতে রাজি হয়েছে তাদের নিবন্ধনের মাধ্যমে ভাসানচর স্থানান্তর করা হচ্ছে।

স্বেচ্ছায় ভাসানচর যেতে রাজি হওয়া রোহিঙ্গাদের নিবন্ধনের মাধ্যমে প্রথমে উখিয়া কলেজ মাঠে নিয়ে আসা হয়। পরে সব প্রক্রিয়া শেষে প্রটোকলের মাধ্যমে চট্টগ্রাম নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে জাহাজে করে ভাসানচর নিয়ে যাওয়া হয়।

এদিকে চার দফায় রোহিঙ্গাদের ভাসানচর স্থানান্তর করা হয়। চতুর্থ দফায় স্বেচ্ছায় রাজি হওয়া রোহিঙ্গাদের প্রথমদিনের ২০১৪জন রোহিঙ্গাকে জাহাজে করে ভাসানচর স্থানান্তর করা হয়েছে। দ্বিতীয় দিনের ১০০৯ জন মঙ্গলবার চট্টগ্রাম হয়ে ভাসানচর যাবেন বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে।

রোহিঙ্গাদের বহরের সাথে তাদের জিনিসপত্র বোঝাই চতুর্থ দফায় ১৭টি কার্গো ট্রাক রয়েছে। এসব বহরের সাথে রয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। মূলত সড়কপথে তাদের ভাসানচরের উদ্দেশ্যে উখিয়ার অস্থায়ী ট্রানজিট ক্যাম্প থেকে চট্টগ্রাম নিয়ে যাওয়া হয়।

শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের কার্যালয় সূত্র জানায়, গত ৪ ডিসেম্বর প্রথম দফায় ১ হাজার ৬৪২জন, ২৯ ডিসেম্বর দ্বিতীয় দফায় ১ হাজার ৮০৪জন, ২৯ জানুয়ারি তৃতীয় দফার (প্রথমদিন) ১ হাজার ৭৭৮জন ও ৩০ জানুয়ারি তৃতীয় দফার (দ্বিতীয়দিন) ১হাজার ৪৬৪জন ও আজ ১৫ ফেব্রুয়ারি চতুর্থ দফার (প্রথমদিন) ২ হাজার ১৪ জন, দ্বিতীয় দিন (সোমবার) এ পর্যন্ত ১০০৯জন রোহিঙ্গাসহ ৯ হাজার ৬৭০জন রোহিঙ্গা ভাসানচরে গেছেন। ভাসানচরে আশ্রয়শিবিরে ১ লাখ রোহিঙ্গাকে সরিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনা আছে সরকারের। সেই লক্ষ্যে কক্সবাজারের টেকনাফ-উখিয়া রোহিঙ্গা শিবির থেকে স্বেচ্ছায় যেতে ইচ্ছুক এসব রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে হস্তান্তর করা হচ্ছে ।

অতিরিক্ত শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার (এআরআরআরসি) মোহাম্মদ সামছু-দৌজা জানান, সোমবার দুপুরে নোয়াখালীর ভাসানচরের উদ্দেশ্যে উখিয়া ছেড়েছে ২০টি বাস । তবে ১ম ধাপ থেকে এ পর্যন্ত কতজন রোহিঙ্গা ভাসানচরে গেছেন তা হিসাব করে বলতে হবে।

তিনি আরো বলেন ইতিমধ্যে যারা ভাসানচরে গেছেন তারা অনেক ভালো আছে। আগামীতে ক্যাম্প থেকে আরো বেশ সংখ্যক রোহিঙ্গা ভাসানচর যেতে আগ্রহ দেখাচ্ছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।