মনের চলন

শুভংকর বড়ুয়া

“মনের উপর কারো হাত
নাই, মনের উপর জোর
খাটানোর চেষ্টা করা বৃথা।” -ম্যাক ডোনাল্ড

শিং মাছ বা কই মাছ পানিপূর্ণ ড্রামে বাঁচিয়ে রাখলে মাছগুলো পানিতে নড়ে ধূম, ধাম, টাকুস, টুকুস, গুড়ুর গাড়ুর আওয়াজ সৃষ্টি করে তেমনি হৃদপিন্ডে আমাদের মন টুকুস, টাকুস, গুড়ুর,গাড়ুর, ধূম, ধাম করে যা আমরা টের পায় না।

গ্রীক শব্দ ‘সাইকি’ এর অর্থ ‘মন’। মন শব্দটা বিশেষ্য পদ। এর অর্থ অন্তঃকরণ, চিত্ত, হৃদয়, বিবেচনা, স্মৃতি, ইচ্ছা, পছন্দ, সংকল্প, নিষ্ঠা।
আমরা সবাই মানুষ। এই মানুষকে ভাঙলে শরীরের সাথে মন পাওয়া যায়। চলুন মনকে একটু বিশ্লেষণ করিঃ–
বিশ্লেষণ করে স্পর্শ, বেদনা, চেতনা, একাগ্রতা, বিতর্ক, বিচার, বীর্য, প্রীতি, ছন্দ ইত্যাদি পাওয়া যায়।
মন হল বুদ্ধি এবং বিবেকবোধের এক সমষ্টিগত রুপ যা থেকে চিন্তা, অনূভুতি, আবেগ, ইচ্ছা,এবং কল্পনার মাধ্যমে আমাদের ভিতরে প্রকাশিত হয়।

বিজ্ঞানের দিক দিয়ে যদি বলিঃ যা প্রাণিকে বিষয় অথবা আলম্বন অথবা object অথবা উদ্দীপক (Stimulant) সম্পর্কে জাগ্রত করায় অথবা জাগ্রত করে রাখে তাকে মন বলে।

মন হল একটা দারুন যন্ত্র। অপ্রিয় হলেও সত্য যে আমরা অসীম ক্ষমতা ভাঙিয়ে লাভবান হওয়ার বদলে দুর্ভোগই পোহায়। ইংরেজীতে একটা কথা আছে “Your real problem is on your heart region”. অর্থাৎ আমাদের আসল সমস্যা আমাদের হৃদ অঞ্চলে। আমাদের মস্তিষ্কতে, হৃদপিন্ডে, যকৃতে, কিডনিতে, পাকস্থলীতে, ক্ষুদ্র অন্ত্র, বৃহ অন্ত্র, পিত্ত, অগ্নাশয়, ফুসফুস, ত্বক, রক্ত, এবং আরও অঙ্গ প্রত্যঙ্গে নয়।

হে পাঠক চলুন একটু বিশ্লেষণ করিঃ
এসব অঙ্গগুলোতে সমস্যা হলে সঠিক চিকিৎসায় ভাল হয় অথবা সম্পূর্ণ ভাল না হলেও দীর্ঘদিন বাঁচা যায়। এভাবে উপস্থাপন করার কারণও যথেষ্ট বিদ্যমান। কেননা আমাদের শারীরিক সমস্যার চেয়ে মানসিক সমস্যা জটিল। আমাদের মনস্তাত্ত্বিক সমস্যা গুলো নিবৃত্ত হলে আমাদের মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সুখ ও পরম শান্তি লাভ করতে সক্ষম হবে মনে করি।
প্রত্যেকটি মানুষের আভ্যন্তরীণ ধর্ম এক। মন ধর্মই হচ্ছে আভ্যন্তরীণ ধর্ম। মনের স্বভাব বা ভাব মানেই ধর্ম। মনের স্বভাবের কারণে আমাদের ভিতরে লোভ, দ্বেষ, মোহ, কাম, হিংসা, অহংকার, চঞ্চলতা, অস্থিরতা সৃষ্টি করে আমাদের শরীরে।

পরিশেষে বলতে চাই, সুখ-দুঃখের মূল কেন্দ্রবিন্দু হচ্ছে আমাদের মন। কবির সুরে বললেঃ-
” আমাদের অদমিত মন দুঃখ দেয়,
আমাদের দমিত মন সুখ দেয়।
আসুন আমাদের মনকে হিংসাহীন মন,নিরহংকারী মন,অলোভ মন হিসাবে তৈরি করে এই সুন্দর বিশ্বে নিজেদের অস্তিত্ব ধরে রাখি।

লেখক: প্রভাষক, রসায়ন বিজ্ঞান,
সরকারি বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মহিলা কলেজ,
উখিয়া, কক্সবাজার।

রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।