প্রিমিয়ারে মুজিববর্ষ আন্তঃক্লাব তর্ক যুদ্ধ’র সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণ সম্পন্ন

রাইজিং কক্স ডেস্ক : চট্টগ্রাম নগরীর দামপাড়াস্থ প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি অডিটোরিয়ামে মুজিববর্ষ বা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত ‘মুজিববর্ষ আন্তঃক্লাব তর্ক যুদ্ধ’র সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে।

১৮ মার্চ (বৃহস্পতিবার) বেলা ১২টায় প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি ডিবেটিং সোসাইটি (পিইউডিএস)-এর উদ্যোগে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির ট্রেজারার প্রফেসর একেএম তফজল হক। প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি ডিবেটিং সোসাইটি (পিইউডিএস)-এর চীফ মডারেটর জুলিয়া পারভিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ব্যবসা-শিক্ষা অনুষদের সহকারী ডিন এম. মঈনুল হক, গণিত বিভাগের চেয়ারম্যান মো. ইফতেখার মনির ও আইন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক হিল্লোল সাহা।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রফেসর একেএম তফজল হক ‘বিতর্ককে শিল্পের পথে নিয়ে যেতে পিইউডিএস কাজ করছে’ উল্লেখ করে বলেন, বিতর্কচর্চা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। একটা বিশ্ববিদ্যালয়কে এগিয়ে যেতে হলে পড়ালেখার পাশাপাশি সংস্কৃতিচর্চা, বিতর্কচর্চাও দরকার। বিতর্কচর্চা একটা মানুষের মধ্যে যুক্তিবোধ ও ভ্রাতৃত্ববোধ তৈরি করে। তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গভীরভাবে স্মরণ করেন এবং বাংলাদেশে পশ্চিম পাকিস্তানের ২৩ বছরের শোষণের ইতিহাস বর্ণনা করেন। তিনি বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এই দেশ স্বাধীন করেছেন। তাঁর জন্ম না হলে বাংলাদেশের মানুষ স্বাধীনতার মুখ কখনো দেখতো না। তিনি আরও বলেন, একসময় বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে জানার সুযোগ ছিল না, তাঁর সম্পর্কে জানতে দেওয়া হতো না। তবে এখনকার প্রজন্ম তাঁর সম্পর্কে অনেককিছুই জানে; যেহেতু এখন তাঁর সম্পর্কে জানার সুযোগ ও পরিবেশ রয়েছে। এখনকার প্রজন্ম জানে, স্বাধীনতার মহানায়ক ও বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।
বিশেষ অতিথি এম. মঈনুল হক বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দেওয়া, বাঙালিকে স্বাধীনতা এনে দেওয়া প্রভৃতির মূলে কাজ করেছে তাঁর ভাষণগুলোতে অসাধারণ সব যুক্তি ও তর্ক উপস্থাপন।
বিশেষ অতিথি প্রফেসর ইফতেখার মনির তাঁর বক্তব্যে তর্কযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী সব বিতার্কিককে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, তর্কের ভিত্তি হলো যুক্তি। বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য যুক্তির উপর নির্ভর না করে পারা যায় না।
বিশেষ অতিথি হিল্লোল সাহা বলেন, পিইউডিএস আন্তর্জাতিক বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটিকে তুলে ধরেছে, ধরছে। তাই পিইউডিএস প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির গর্বের, গৌরবের।

পিইউডিএস-এর সাবেক সভাপতি কাজী নুরুল হকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন পিইউডিএস-এর সাবেক সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার তানভির আহমেদ সিদ্দিকী।

অনুষ্ঠানে ‘মুজিববর্ষ আন্তঃক্লাব তর্ক যুদ্ধে’ প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটিকে চ্যাম্পিয়ন এবং নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়কে রানার আপ ঘোষণা করে পুরস্কার প্রদান করা হয়। আইআইইউসি-র আদিব ওয়াহিদ বিন কাদেরকে ডিবেটার অব দ্য টুর্নামেন্ট এবং প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির মোহাম্মদ মেহেদী রহমান নিকাশকে ডিবেটার অব দ্য ফাইনাল ঘোষণা করে পুরস্কার দেওয়া হয়। স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের বিতার্কিকদের নিয়ে বারোয়ারি বিতর্ক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয় ‘যদি রাত পোহালে শোনা যেত’ বিষয়ে। এই প্রতিযোগিতায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের নাফিজা সাদাফ প্রথম স্থান, বাংলাদেশ নৌ-বাহিনী স্কুল এন্ড কলেজের নিশাত তাবাসসুম দ্বিতীয় স্থান, কর্ণফুলী স্কুলের সাদ ইবনে মহসীন তৃতীয় স্থান ও মহসীন কলেজের শহীদ বিন হুদা রিফাত চতুর্থ স্থান অধিকার করে। প্রত্যেককে পুরস্কৃত করা হয়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ব্যবসা-প্রশাসন বিভাগের শিক্ষক সুজন কান্তি বিশ্বাস, সাদিয়া আকতার, স্টিভ ডি রোজারিও, পিইউডিএস-এর মডারেটর নিলুফার সুলতানা, সাইফুদ্দিন মুন্না, ফারিয়া হোসেন বর্ষা, নুসরাত শারমিন, দুহিতা চৌধুরী, পিইউডিএস-এর সভাপতি সৌমেন সরকার ও সাধারণ সম্পাদক আত্তিহারুল কবির।

রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।