কক্সবাজার

৪৮ বছর পর শহীদ ফরহাদ-সুভাষ তোরণ

শহীদ ফরহাদ-সুভাষ তোরণ। ছবি: সংগৃহীত

রাইজিং কক্স ডেস্ক : মহান মুক্তিযুদ্ধে কক্সবাজার জেলার রয়েছে গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস। পরাধীনতার গ্লানি হতে দেশমাতৃকাকে মুক্ত করার লক্ষ্যে অকাতরে যারা প্রাণ বিলিয়ে দিয়ে অমর হয়েছেন, তাঁদের মাঝে রয়েছেন কক্সবাজারের অহংকার – শহীদ সুভাষ এবং শহীদ ফরহাদ।

শহীদ ফরহাদ চট্টগ্রাম কলেজে অধ্যয়নকালে রাজনীতিতে জড়িয়ে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন, ছয় দফা আন্দোলন ও উনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসের ছাত্র টগবগে তরুণ ফরহাদ, এম.এ ফাইনাল পরীক্ষা ছেড়ে যোগ দেন মুক্তিযুদ্ধে। চট্টগ্রাম শহর ও হাটহাজারী এলাকায় বীরত্বের সাথে যুদ্ধ করে তিনি কক্সবাজার জেলায় চলে আসেন। কক্সবাজার ও আরাকান সড়কের পাহাড়ি এলাকায় প্রায় দুইশত ইপিআর ও মুক্তিযোদ্ধাদের তিনি সংগঠিত করে প্রতিরোধ ব্যুহ গড়ে তোলেন।

অপরদিকে কক্সবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ও কক্সবাজার সরকারি কলেজের ছাত্র সুভাষ দাশ কিশোর বয়স থেকেই পকিস্তান বিরোধী রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। নিঃস্বার্থ, নিবেদিতপ্রাণ এই তরুণ নেতা রামুস্থ খিজারী উচ্চ বিদ্যালয়ে পাকিস্তানী পতাকা নামিয়ে আগুনে পুড়িয়ে দেন। কক্সবাজারে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিরোধে তিনি অন্যতম ভূমিকা পালন করেন।

১৯৭১ সালের ৬ মে বীর মুক্তিযোদ্ধা সুভাষ ও ফরহাদ কে নুনিয়াছড়ি বাঁকখালী নদীর তীরে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়।

সুভাষ-ফরহাদের মতো ত্রিশ লক্ষ শহীদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে আজ আমরা মুক্ত বাতাসে নিঃশ্বাস নিতে পারি। বিজয়ের ৪৮ বছরে বীর মুক্তিযোদ্ধা সুভাষ-ফরহাদের স্মৃতি সংরক্ষণে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ক্ষুদ্র প্রয়াসঃ শহীদ ফরহাদ-সুভাষ তোরণ।