অক্সিজেন সংকট মেটাবে চট্টগ্রামের ‘একেএস প্ল্যান্ট’

রাইজিং কক্স ডেস্ক : চলমান করোনা পরিস্থিতিতে ভারত থেকে আমদানিকৃত অক্সিজেনের চাহিদা পূরণের আশ্বাস দিয়েছে আবুল খায়ের গ্রুপের চট্টগ্রাম থেকে পরিচালিত ‘একেএস প্ল্যান্ট’।

দেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে সম্ভাব্য অক্সিজেন সংকট মোকাবিলায় ব্যাপক পরিসরে অক্সিজেন উৎপাদন কার্যক্রম শুরু করেছে এই শিল্প প্রতিষ্ঠানটি। গত বুধবার বিকাল সাড়ে ৪টায় চট্টগ্রামে সীতাকুণ্ডুর সোনাইছড়ির শীতলপুর এলাকায় অবস্থিত একেএস অক্সিজেন কারখানায় এই সম্প্রসারণ কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। যার মধ্য দিয়ে সরকারি হাসপাতালগুলোতে প্রয়োজনীয় লিকুইড (তরল) অক্সিজেন সরবরাহ করা হবে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী মুহাম্মদ আবদুল্লাহ, অক্সিজেন প্ল্যান্টের জিএম মো. নজরুল ইসলাম, ডিজিএম এনপি গৌর, এজিএম মো. সামসুদ্দোহা এবং এইচআর অ্যান্ড এডমিনের সিনিয়র ম্যানেজার ইমরুল কাদের ভূঁইয়া প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এ সময় প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী মুহাম্মদ আবদুল্লাহ, বলেন, এতদিন দেশীয় প্রতিষ্ঠান লিন্ডা, স্পেক্ট্রা ভারত থেকে অক্সিজেন আসতো। এখন হঠাৎ করে দেশটি সাপ্লাই বন্ধ করে দেয়ায় সমূহ বিপদ থেকে দেশকে বাঁচাতে আবুল খায়ের গ্রুপ এই উদ্যোগ নিয়েছে। পাশাপাশি প্রতিষ্ঠান দুটিকেও তাদের চাহিদা অনুসারে অক্সিজেন প্রদান করা হবে।

তিনি বলেন, দেশে এই মুহূর্তে প্রতিদিন ২০০ টন অক্সিজেনের চাহিদা আছে। আর এ প্ল্যান্টের উৎপাদন ক্ষমতা ২৬০ টন। এই মুহূর্তে নতুন এই প্ল্যান্ট প্রতিদিন ২০ টন অক্সিজেন সরবরাহ করবে। প্রয়োজনে অন্যান্য কারখানা বন্ধ রেখে অক্সিজেন উৎপাদন করা হবে। অক্সিজেন সরবরাহ থেকে প্রাপ্ত অর্থ প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে প্রদান করা হবে। উল্লেখ্য, ২০২০ সালে করোনা মহামারি শুরু হলে একেএস প্ল্যান্টে উৎপাদিত অক্সিজেন জনস্বার্থে উন্মুক্ত করে দেয় আবুল খায়ের গ্রুপ। প্রতিদিন ২৬০ টন অক্সিজেন উৎপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন দেশের বৃহত্তম এই অক্সিজেন প্ল্যান্ট থেকে ১০ হাজারেরও বেশি ব্যক্তিকে ও হাসপাতালকে বিনামূল্যে অক্সিজেন প্রদান করা হয়েছে রিফিলের মাধ্যমে। এছাড়া ৫ হাজারেরও বেশি সিলিন্ডার প্রদান করা ও নিজস্ব উদ্যোগে ২০টি হাসপাতালে কেন্দ্রীয় অক্সিজেন সরবরাহ ব্যবস্থা নির্মাণ করে দেয়া হয়েছে।

রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।