ভালোবাসার মানুষ হ’

আলমগীর মাহমুদ
শিক্ষকতার সুবাদে আকাশই আমার ছাউনী মাটিই বিছানা, এই পরিসরে যাদের বসত তারাই আমার ভালবাসার। সাগরের লাল কাঁকড়া, ডইঙ্গালতা, কচ্ছপ, ডলফিন , বাঘ, হরিণ, গাঙচিল, এরাও যে আমার ভালবাসার গর্বিত সদস্য । আঁচ করা হয়নি কখনও। প্রকৃতিরও যে প্রকৃত প্রকৃতি আছে , মনের আকূতি ভাললাগা মন্দ লাগা ফূঁসে উঠা, প্রতিশোধ আছে কথাগুলো বাংলা দ্বিতীয় পত্রের রচনায় লিখেছিলাম পরীক্ষা পাশে। বোধে আসেনি তেমন।
সীলবাসে বন্দী পড়ালেখায় সার্টিফিকেট অর্জনই ছিল নৈবেদ্য। আমাদের সময়ে ফাষ্ট ডিভিশনের প্রতিযোগিতা।, সেকেন্ড ডিভিশন ছিল ইজ্জত বাঁচানো পাশ, থার্ড ডিভিশন বেইজ্জইত্যা পাশ হিসেবেই ছিল সমাজে অলিখিত. নির্ধারণ। পাশের পরও গাঁও গেরামের ময় মুরুব্বিদের অবজ্ঞা অবহেলা মার্কা কথাবার্তার ভয়ে বেইজ্জইত্যা পাশ মুক্তিই হয়েউঠেছিল জীবনের লক্ষ্য।
প্রকৃতি নিয়ে যারা ভাববে তারা আমি আমরা নই, কবি সাহিত্যিক দেউলিয়া টাইপের মানুষ। এমন ভাবই ছিল সমাজে। জগৎ সংসারে সবাই তাদের ভাবতো ‘পাগল ‘ অবাস্তবাদী,হেয়ালী টাইপের মানুষ । হালকা আঁড় চোখেই হতো দেখা। করোনাকালই জানান গিয়ে গেল কে আসল পাগল!
লকডাউনে কক্সবাজার। পর্যটক শূণ্য সাগর পাড়। যতই দিন গেছে দলে দলে বিরল প্রজাতির ডলফিন খেলা করছে অনেকটা চর আর জলে।
কচ্ছপ ডিম ছাড়তে উঠেছে চরে। নিজ আমেজে ভয়শূণ্যে। লাল কাঁকড়ার দল ঝাঁকে ঝাঁকে। নান্দনিক আবহে আলপনা আঁকছে চরে। লিওনার্দো ভিঞ্চির মোনালিসার সৌরভ সৌন্দর্যকে হার মানিয়ে বিলীয়েছে নুতন সৃষ্টির আলীশান আলপনা। গাঙচিলের দল উত্যত্তহীন নিংসংকোচে আছে বসে। দলে দলে।৷ অলস সময়ের তৃপ্ত পরশে ।
সাগরের ঢেউয়ে খেলা করছে বনো হরিণ। সাগরলতায় এসেছে নুতন সাঁজ, ফুটেছে ফুল । বালিয়াড়িকে প্রেমিকের যুগলবন্দীর মতো আছে জড়িয়ে। এ যেন মানুষ্যবিহীন প্রকৃতির স্বাধীন ও স্বকীয়তা । আমাদের আচরণেই যাহ হারিয়েছিল সে। শহর বন্দর পাহাড় পর্বত গ্রামগঞ্জ যেখানেই থাকুন আপনি একবার চোখ মেলুন.. প্রকৃতির রাজ্যে পশু পাখি লতাগুল্মের পানে ।
আমাদের বন্দীদশা তাদের শান্তি স্বস্তির। স্বকীয়তায় বেড়ে উঠার। বারেবার তারা জনান দিচ্ছে “তোরা না থাকলে ক্ষতি নেই আমাদের৷ লোকসানও গুনবে না পৃথিবী । থাকলে বরং অসুন্দরই বাড়বে। সাঁজাল ধরিত্রী হবে অগোছালই । তোদের বাঁচাতে, সুখী করতেই আমরা!
বাঁচতে চাস ! আমাদের ভালবাসার পাওন ফেরত দে !!
লেখক:- বিভাগীয় প্রধান, সমাজবিজ্ঞান বিভাগ। উখিয়া কলেজ, কক্সবাজার।

রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।