করোনাকালেও থেমে নেই মাদক ব্যবসা

উদ্ধারকৃত ইয়াবা

রাইজিং কক্স ডেস্ক: করোনাভাইরাস মহামারীর এই সময়ে মাদক উদ্ধার ও পাচারকারী গ্রেপ্তারের ঘটনা স্বাভাবিকের সময়ের চেয়ে বেশি বলে জানিয়েছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। “করোনাভাইরাসে কারণে প্রায় সব অপরাধ কমলেও মাদকের মামলা প্রায় আগের মতোই রয়েছে এবং মাদক সরবরাহকারী চক্রটি সক্রিয় রয়েছে,” বলছেন কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এএসপি) মো. ইকবাল হোসেন।

তবে বিজিবির টেকনাফ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফনেটেন্ট কর্নেল মোহাম্মদ ফয়সল হাসান খান বলছেন, সাধারণ ছুটিতে মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান আগেই ‘রিদমেই’ চলছে।

বাংলাদেশে মাদকের মধ্যে এখন সবচেয়ে বেশি আলোচিত ইয়াবা ট্যাবলেট টেকনাফ সীমান্ত পথেই দেশে ঢোকে। পরে তা দেশের অন্য স্থানে যায়।
বৈশ্বিক মহামারী আকার ধারণ করা কোভিড-১৯ এর প্রাদুর্ভাব গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে ঘটার পর ছোঁয়াচে এই রোগের বিস্তার ঠেকাতে গত ২৬ মার্চ থেকে চলছে লকডাউন। এতে সীমান্তও রয়েছে বন্ধ।

অফিস-আদালত-শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, গণপরিবহন বন্ধ করে এই সময়ে সবাইকে ঘরে থাকার নির্দেশনা দেওয়া হয়, যা কিছুটা শিথিল হলেও এখনও চলছে। এর মধ্যে অন্য সব অপরাধ কমে যাওয়ার তথ্য থানা থেকে মিললেও মাদকের ক্ষেত্রে ঘটেছে উল্টো ঘটনা।

পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, লকডাউনে ব্যবসা-বাণিজ্য থমকে গেলেও মাদক কারবারিরা অন্য সময়ের মতোই ব্যস্ত, গ্রেপ্তারও হচ্ছে বেশি।

মাদকবিরোধী অভিযানে সক্রিয় র‌্যাব বলছে, এই লকডাউনের মধ্যে অন্য সময়ের চেয়ে বেশি মাদক কারবারি গ্রেপ্তার হয়েছে।

র‌্যাবের সদর দপ্তরের পরিচালক (ইন্টেলিজেন্স) সারওয়ার বিন কাশেম বলেন, এ বছরের ১ মার্চ থেকে ২৩ মে পর্যন্ত এক হাজার ৫৩৫ জন মাদকারবারি গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এসময় উদ্ধার করা হয়েছে ৯ লাখ ৯৩ হাজার ৯১৩টি ইয়াবা বড়ি, ২৩ হাজার ৯৫৬ বোতল ফেন্সিডিল, ১০ কেজি হেরোইন। তার আগে জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি মাসজুড়ে গ্রেপ্তার করা হয় ৯৮৬ মাদক কারবারিকে। আর উদ্ধার করা হয় ৪ লাখ ২৫ হাজার ৬৪২টি ইয়াবা বড়ি, ১৬ হাজার ৭৩২ বোতল ফেন্সিডিল ও ১৪ কেজি ৮৩০ গ্রাম হেরোইন।

সারওয়ার বিন কাশেম বলেন, “তুলনা করলে দেখা যায় বছরের প্রথম দুই মাসে যে কয়জন গ্রেপ্তার হয়েছেন, পরের দুই মাসে ছুটির সময়ে বেশি গ্রেপ্তার হয়েছে। আর উদ্ধার করাও হয়েছে বেশি ইয়াবা বড়ি।”
লকডাউনের মধ্যে ১২ জন মাদক কারবারি ‘গুলি বিনিময়ে’ মারা যান বলে জানান এই র‌্যাব কর্মকর্তা।

রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।