সন্ন্যাসী আলোর মায়া

শেখর দেব

দিনের দারুণ উদারতা হতে কুড়িয়েছি আয়ু
বায়ু তবু বয়ে যায় অন্তীম আগুন রেখা ধরে
কে বলো চেয়েছে যেতে এমন স্বভাব রিক্ত পথে?
অথচ স্বপ্নের দোরে কতোবার কড়া নাড়ে
সন্ন্যাসী আলোর মায়া আর রিক্ত দেহের দরদ
অন্তস্থ স্পন্দন যেন বারবার টেনেছে সে পথে।

ভেঙে যাবো কি না ভেবে ভেবে
ইতস্তত আছি বেশ বিক্ষিপ্ত বিপাকে
ভোরের রঙিন দোরে কড়া নাড়ার আশায়
গভীর রাতের কাছে ঘুমের বালিশ চেয়ে
আবদার করে তুমুল তাণ্ডব যেন ঘটিয়ে দিয়েছি
বিছানার কোলে কুলকুল রবে ঝরে ঝর্ণা
ছন্দময় সেসব শব্দকে বালিশ বানিয়ে
ঘুমের গভীরে ডুবে যাই মৃতের দোসর হয়ে
ঘুম কী নির্ভুল মৃত্যু দিয়েছে সংসারে!

দেখা হয় না কখনো মাহেন্দ্র ভোরের মুখ
ব্রহ্মক্ষণে পাখিদের ডাকে কখনো উঠিনি জেগে
মনস্তাপ থেকে মুক্তির মমতা ঝরে
ছড়িয়ে ছিটিয়ে যায় দূর বহুদূর স্পর্শের অতীত
তবুও সকাল আসে রৌদ্রোজ্জ্বল আদিম আগুনে
জীবীকার জয়ধ্বজা উঠে আসে চোখে।

আবর্তিত এসব সূর্যচক্র-দিন ভুলে গিয়ে
নক্ষত্ররহিত আলোর মশাল দেখি চতুর্দিকে
অথচ সে আলো মায়া কাটানোর কথা বলে
ভেঙেচুরে চুরমার করে ফেলে যায় ছায়াপথে
গন্তব্যহীন পথের পাথরের অবিকল স্থির হয়ে
বসে থাকি, পাক খাই ধরার ঘূর্ণনে প্রতিদিন।

০২.০৬.২০২০। কাপ্তাই। রাঙামাটি।

রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।