হাসান ওয়াহিদের কবিতা

ফেরা

পথতরুর ছায়ায় দুপুর গড়িয়ে যায়
ছেঁড়া ছেঁড়া মেঘে লেগে থাকে
ফিকে গোলাপি রং
একটা ঘুড়ি হয়ে আকাশে
প্রায় একটা বিন্দু হয়ে বাতাসে সাঁতার দিই
বিস্ময়ের সঙ্গে আনন্দ মিশলে যেমন হয়।
সোনালি রোদ গায়ে মেখে
আকাশ ছোঁয়ার খেলায় মেতে উঠি
যদিও সে উড়ায় ঘুঘুর ডাকের মতো
একটুখানি একাকিত্ব লেগে থাকে।
নিচে কাশফুল, পাশে আলোর ইশারা
ছিঁড়ে নেয় মায়াজাল
কেড়ে নেয় স্বপ্নের মুকুল হয়ে ফুটে ওঠা।

যার খুশিতে উড়ছিলাম তারই ইচ্ছা মেনে
গাঢ় সন্ধ্যায়
এই শহরের কোনো এক ঘরে
ধুলোমাখা আসবাবপত্রের আলোর আড়ালে
ফিরে যাই।

সন্নিধান

বুকের চাতাল জুড়ে আলতার ছাপ এঁকে
চলে গেছো তুমি।
প্রাণান্ত ছুটেছি আমি, জোসনার ছায়াপথ ঘুরে
গাঢ় অন্ধকার ভেঙে তোমাদের বাড়ি যাব।
বুড়িয়ে যাচ্ছি, বয়স হবার আগেই
তবু যাব একবার।

রোদ্দুর আড়াল করতে বারান্দার রেলিংএ
ঝুলিয়ে দেবে তোমার খয়েরি ওড়না
ঠিক আগের মতো কথার ফাঁকে চুল খুলে
আরও একবার খোঁপা বেঁধে নেবে।
আবারও হবে অবগাহন
দু’টি চোখের গভীর জলাশয়ে
দরাজ অভিমান ভুলে চেখে নেব
পূর্বদৃশ্যের আবর্তন
জড়ো হওয়া স্মৃতি থেকে খুঁজে নেব
পুরনো সঙ্গমমুহূর্তগুলো—-
নিজের দুঃখের পাশে অন্যের দুঃখের
নাগরিক-মেঘ
ভালোবাসার দুঃসাহসে
ধুয়ে দিতে পারে না ধবল আবেগ।

রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।