পটিয়ায় ছাত্রকে বলাৎকারের অভিযোগে মাদ্রাসা শিক্ষক গ্রেপ্তার

নিউজ ডেস্ক : চট্টগ্রামের পটিয়ায় ১৩ বছরের শিশু মাদ্রাসার ছাত্রকে বলাৎকারের অভিযোগে কামরুল ইসলাম (২৮) নামে এক শিক্ষককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় সোমবার বিকেলে শিশুটির বাবা বাদী হয়ে পটিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

গ্রেপ্তার শিক্ষকের নাম কামরুল ইসলাম। তিনি পিরোজপুর জেলার জিয়ানগর উপজেলার মৃত সুলতান ফকিরের ছেলে ও পটিয়া পৌর সদরের ১নং ওয়ার্ডের আল্লাই মোহম্মদীয়া মাদ্রাসার শিক্ষক।

নির্যাতিত শিশুটির বাবা বলেন, আমার ছেলে পটিয়া শাহচাঁদ আউলিয়া কামিল মাদ্রাসায় হেফজ বিভাগে পড়াশোনা করছে। গত রোববার রাত ৮টার দিকে আমার ছেলে পটিয়া স্টেশন রোড় থেকে আমির ভান্ডার এলাকায় বাসায় আসার পথে মাদ্রাসা শিক্ষক কামরুল আমার ছেলেকে তার বাসায় নিয়ে যায়। সেখানে আমার ছেলেকে বলাৎকার করে। পরে তাকে পিঁয়াজু দিয়ে বলে দেন এ ঘটনা যাতে কাউকে না বলে। পরে ছেলে রাতে বাসায় এসে তার মাকে ঘটনাটি খুলে বলে। তার মা আমাকে জানালে আমি আমার ছেলেকে নিয়ে মাদ্রাসা শিক্ষকের বাসা খুঁজে বের করি। এসময় স্থানীয় লোকজনদের জানানো হলে স্থানীয়রা তার বাসার রুমের বাইরে তালা মেরে পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

মাদ্রাসা শিক্ষক কামরুল ইসলাম জানিয়েছেন, ‘আমি এ ধরণের কিছুই করিনি। এমনিতে ছেলেটাকে আদর করেছিলাম। পরে তাকে পিঁয়াজু খেতে দিয়েছি।’

ঘটনার সত্যতা শিকার করে পটিয়া থানার এসআই বোরহান উদ্দিন জানিয়েছেন, শিশু বলাৎকারের ঘটনায় মাদ্রাসা শিক্ষককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ঘটনার বিস্তারিত জানার জন্য জিজ্ঞাসাবাদ অব্যাহত রয়েছে।

রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।