দ্বিতীয় টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে সবচেয়ে কম ম্যাচ বাংলাদেশের

ক্রীড়া ডেস্ক : নিউজিল্যান্ড ও ভারতের টেস্ট দিয়ে শেষ হয়েছে প্রথম টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ। আর ফাইনালে ভারতকে উড়িয়ে দিয়ে প্রথম টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা জিতেছে নিউজিল্যান্ড। প্রথম টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ শেষ হতেই দ্বিতীয় টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হচ্ছে। কিন্তু নতুন আসরে বাংলাদেশে ম্যাচ সংখ্যা সবচেয়ে কম!

প্রথম টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশের তিন ম্যাচের সিরিজ ছিল তিনটি। যদিও করোনার কারণে একটিও খেলা সম্ভব হয়নি। দ্বিতীয় টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে একটি তিন ম্যাচের সিরিজও নেই বাংলাদেশের। নতুন মেয়াদে ৬টি দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলবে মুমিনুল-মুশফিকরা। এমন অবস্থায় সবচেয়ে কম ১২ টেস্ট ম্যাচ খেলার সুযোগ পাচ্ছে বাংলাদেশ। সবচেয়ে বেশি ২১ টেস্ট খেলবে ইংল্যান্ড।

দ্বিতীয় টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশ ঘরের মাঠে খেলবে পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা ও ভারতের বিপক্ষে। অন্যদিকে বিদেশ সফরের তিন সিরিজ নিউজিল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের শুরুটা হবে পাকিস্তানকে দিয়ে। আগামী নভেম্বর-ডিসেম্বরে খেলবে পাকিস্তানের বিপক্ষে, এরপর ডিসেম্বরে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। লঙ্কানদের বিপক্ষে সিরিজ শেষ করেই নিউজিল্যান্ডের উদ্দেশে উড়াল দেবে সাকিব-তামিমরা। কয়েক মাসের বিশ্রামের পর মার্চ-এপ্রিলে দক্ষিণ আফ্রিকা সফর করবে বাংলাদেশ। ওই সফর শেষে জুলাই-আগস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজে যাবে তারা। এরপর নভেম্বরে দেশের মাঠে ভারতের বিপক্ষে সিরিজ দিয়ে শেষ হবে বাংলাদেশের টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের সূচি।

ইংল্যান্ডের পর সবচেয়ে বেশি টেস্ট ভারতের, ১৯টি। এছাড়া অস্ট্রেলিয়া ১৮, দক্ষিণ আফ্রিকা ১৫, পাকিস্তান ১৪, শ্রীলঙ্কা ১৩ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ খেলবে ১৩ টেস্ট। শুধুমাত্র বাংলাদেশই একমাত্র দল, যাদের সব সিরিজই হবে দুই ম্যাচের।

টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম আসর পয়েন্ট টেবিলের তলানিতে থেকে শেষ করেছে বাংলাদেশ। করোনার কারণে বেশ কিছু সিরিজ বাতিল হয়েছে। সেই সব অবশ্য নতুন করে আয়োজন করার কোনও সুযোগ আর নেই। প্রথম আসরে ৭ টেস্ট খেলে প্রাপ্তি ছিল একটি ড্র ম্যাচ থেকে মাত্র ২০ পয়েন্ট।

 

রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।