পাকিস্তানকে হারিয়ে ফাইনালে নিউজিল্যান্ডের প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ-২০২১

ক্রীড়া ডেস্ক : টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল যেন জমিয়ে রেখেছিল সকল অবিশ্বাস্য নাটকের মঞ্চায়ন। রান তাড়ায় দুর্দান্ত দক্ষতার পরিচয় রেখে প্রথম সেমিফাইনালের মতো অনেক দূর থেকে এগিয়ে এসে ১ ওভার হাতে রেখেই পাকিস্তানের বিরুদ্ধে অস্ট্রেলিয়ার ৫ উইকেটের জয় যেন দিয়ে গেল বার্তা, শেষের আগে অনিশ্চয়তায় ভরা এই খেলা নিয়ে বলা যাবে না কিছুই। ম্যাথু ওয়েডের শেষ বেলার ঝড়ে মরুতে হারিয়ে গেল পাকিস্তানের বিশ্বকাপ স্বপ্ন। আর অবিশ্বাস্যভাবে ম্যাচ জিতে ফাইনালে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে খেলবে অস্ট্রেলিয়া।

গ্লেন ম্যাক্সওয়েল যখন আউট হয়ে যান তখন অজিদের রান ১২.২ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে মাত্র ৯৬ রান। জয় থেকে তখনও অজিরা ৮১ রান দূরে। ক্রিজে ছিলেন পুরো টুর্নামেন্টে ফর্ম হারিয়ে খোঁজা মার্কাস স্টয়নিস ও ম্যাথু ওয়েড। খুব বেশি মানুষ হয়তো এই দুজনের ব্যাটে অজিদের জয়ের ব্যাপারে বাজি ধরেননি। কিন্তু ক্রিকেট এমনই এক খেলা যা মুহূর্তেই পাল্টে দিতে পারে সব হিসেব-নিকেশ। ১৯-তম ওভারে যখন ম্যাথু ওয়েডের ক্যাচ ফেলে দিলেন হাসান আলি, তখনও বলা যাচ্ছিল না ম্যাচের ভাগ্যে কী লেখা আছে। কিন্তু টুর্নামেন্টেরই অন্যতম সেরা বোলার শাহিন শাহ আফ্রিদিকে ৩ ছয়ে যখন ম্যাথু ওয়েড দলকে এনে দিলেন অবিশ্বাস্য এক জয়, তখন সেই ক্যাচ মিসটাই যেন বড় হয়ে দেখা দিলো। স্টয়নিস ও ওয়েডের জুটি শেষ পর্যন্ত অবিচ্ছিন্ন থেকেই দলকে এনে দিলেন এই জয়। ৪০ বলে ৮১ রানের এই জুটিতেই মধ্যপ্রাচ্যের মরুতে হারিয়ে গেল দুর্দান্ত পাকিস্তানের বিশ্বকাপ স্বপ্ন।

এর আগে, শাদাব খানের স্পিনে যেন জয়ের রাস্তা থেকে অনেকটাই ছিটকে যায় অস্ট্রেলিয়া। শাহিন আফ্রিদির প্রথম ওভারে নেয়া দুর্দান্ত উইকেটটির পরের ৪টি উইকেটই তুলে নিয়ে অজি ব্যাটিংয়ের মেরুদণ্ডটাই ভেঙে দিয়েছেন এই অফস্পিনার।

পাকিস্তানের দেয়া ১৭৭ রানের বিশাল লক্ষ্যকে প্রথম ওভারেই আরও বড় বানিয়ে দিয়েছে শাহিন আফ্রিদির করা দুর্ধর্ষ ওভার। অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ ও মিচেল মার্শের বিরুদ্ধে সেই ওভার ১ উইকেটের বিনিময়ে পার করে শাদাব খানের অফস্পিনে অনেকটাই ধরাশায়ী হয়ে যায় অজিরা।

ডেভিড ওয়ার্নার একপ্রান্তে চালিয়ে গেছেন তার লড়াই। কিন্তু তার সাথে আর কেউই দাঁড়াতে পারেননি ক্রিজে। বরং বলা ভালো, শাদাব খানের স্ট্যাম্প টু স্ট্যাম্প বোলিংয়ে রানের গতি বাড়াতে গিয়ে একে একে সাজঘরে ফিরেছেন মিচেল মার্শ, ওয়ার্নার, স্টিভ স্মিথ ও হার্ড হিটার গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। ৪ ওভারে ২৬ রানে ৪টি গুরুত্বপূর্ণ উইকেট দখল করেছেন শাদাব খান।

এর আগে, ফাখার জামান, রিজওয়ান ও বাবর আজমের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে টস হেরে ৪ উইকেটের বিনিময়ে ১৭৬ রান সংগ্রহ করে পাকিস্তান। ম্যাচের অনেকটা সময় পর্যন্তই এই রানকে পাকিস্তানের জয়ের জন্য যথেষ্ট মনে হচ্ছিল। কিন্তু ম্যাথু ওয়েডের ১৭ বলে ৪১ রানের ঝড়ে ছিটকে গেল পাকিস্তান। ২ চার ও ৪ ছয় হাঁকানো ওয়েডের সাথে পার্শ্বনায়ক হিসেবে শেষ পর্যন্ত ক্রিজে ছিলেন মার্কাস স্টয়নিস। ২ চার ও ২ ছয়ে ৩১ বলে ৪০ রানে অপরাজিত ছিলেন এই ডানহাতি হার্ড হিটার।

রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।