মহেশখালীতে সাংবাদিকের ওপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন

সংবাদদাতা : কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলায় চারজন সাংবাদিকের ওপর দুর্বৃত্তদের হামলার প্রতিবাদল মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১০ টা ৪৫ মিনিটের দিকে উপজেলা গোরকঘাটা-শাপলাপুর সড়কের রশিদ মিয়ার খামার বাড়ির পাশের ঢালা এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে।

আহত সাংবাদিকদের অভিযোগ, উপজেলার শাপলাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ওসমান গনির নির্দেশে তার সহযোগী সন্ত্রাসী সরোয়ারের নেতৃত্বে মুখোশধারী সন্ত্রাসীরা তাঁদের ওপর পরিকল্পিতভাবে ওই হামলা চালিয়েছে। এ ঘটনায় আহত সাংবাদিকেরা হলেন দৈনিক জনকণ্ঠের মহেশখালী উপজেলা প্রতিনিধি ফারুক ইকবাল, দৈনিক ইনানীর উপজেলা প্রতিনিধি আ ন ম হাসান, দৈনিক কক্সবাজার বার্তার উপজেলা প্রতিনিধি এস এম রুবেল ও দৈনিক মেহেদীর উপজেলা প্রতিনিধি এ কে রিফাত।

আহত সাংবাদিকরা জানান, গতকাল রাতে তাঁরা শাপলাপুর ইউনিয়নের জাহিদা ঘোনা এলাকায় একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে গিয়েছিলেন। সেখান থেকে মোটরসাইকেলে করে ফেরার পথে রশিদ মিয়ার খামার বাড়ির পাশের ঢালা এলাকায় পৌঁছালে সন্ত্রাসী সরোয়ারের নেতৃত্বে মুখোশধারী কয়েকজন সন্ত্রাসী তাঁদের পথ রোধ করে প্রথমে সংবাদকর্মী এস এম রুবেলের মোটরসাইকেল আটক করে, এ সময় সন্ত্রাসীরা এস এম রুবেল ও তাঁর পেছনের থাকা হাসানকে মারধর করে এবং হাসানের হাতে থাকা ঘড়ি ও ক্যামেরা ভেঙে দেয়। পরে পেছন থেকে ফারুক ও রিফাতের মোটরসাইকেল এলে সন্ত্রাসীরা ওই দুজনকেও মারধর করে। এক পর্যায়ে সন্ত্রাসীরা ওই চার সাংবাদিকদের উদ্দেশ্য করে হুমকি দেয়, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ওসমান গনির বিরুদ্ধে আগামীতে আর কিছু লিখলে তাঁদের মেরে ফেলা হবে।পরে আহত সাংবাদিকেরা মহেশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নেন। ঘটনার পরপরই পুরোজেলা জুড়ে নিন্দার ঝড় উঠেছে, সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুক, অনলাইন, প্রিন্ট ও টিভি চ্যানেলে লেখালেখির মাধ্যমে তুমুল ভাইরাল হয়েছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শুক্রবার বিকালে মহেশখালী উপজেলা চত্বরে মহেশখালীতে কর্মরত সাংবাদিকদের উদ্যোগে এক মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। মানববন্ধনে সাংবাদিক নেতারা ২৪ ঘন্টায় জড়িতদের গ্রেফতার ও ঘটনায় ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধারের আল্টিমেটাম দেয়। মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন মহেশখালী প্রেসক্লাব এর সাবেক সভাপতি মাহবুব রোকন, মহেশখালী উপজেলা প্রেসক্লাব সভাপতি স ম ইকবাল বাহার চৌধুরী, সাংবাদিক জে এইচ এম ইউনুস, ফারুক ইকবাল, গাজী আবু তাহের, এরফান হোছাইন, এস এম রুবেল, নেছার আহমদ, ছিদ্দীক আহমদ আতিক, আজিজ সিকদার, সুব্রত আপন, ইঞ্জিনিয়ার হাফিজুর রহমান, এ কে রিফাত, খাইরুল আমিন, সাইফুল ইসলাম, ফারুক আজম, শাহজাহান, জুয়েল চৌধুরী, মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ শেষে সাংবাদিক আ ন ম হাসান বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন এবং মামলার বাদী অভিযোগ করে বলেন, সম্প্রতি শাপলাপুর ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি ঘটনার বিষয়ে ওসমান গনিকে নিয়ে সংবাদকর্মীরা বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশ করেছেন। এ ঘটনায় সাংবাদিকদের ওপর ওসমান গনি ক্ষুব্ধ ছিলেন। এই ক্ষোভ থেকে ওসমান গনির নির্দেশে সন্ত্রাসীরা পরিকল্পিতভাবে তাঁদের ওপর হামলা চালিয়েছে।

তবে হামলার অভিযোগ ভিত্তিহীন দাবি করে ওসমান গনি বলেন, হামলায় আহত সাংবাদিকদের সঙ্গে তাঁর কোনো বিরোধ নেই। এরপরও প্রতিপক্ষের লোকজন পরিকল্পিতভাবে ঘটনা সাজিয়ে তাঁকে জড়ানোর চেষ্টা করছে। জানতে চাইলে মহেশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আবদুল হাই বলেন, এ ঘটনায় মামলার এজাহার পেয়েছি তদন্ত করে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।