চকরিয়ায় অগ্নিকাণ্ডে দুই সহোদরের বসতঘর পুড়ে ছাই

অগ্নিকাণ্ডের একটি দৃশ্য

সংবাদদাতা : কক্সবাজারের চকরিয়ায় অগ্নিকাণ্ডে দুই সহোদরের বসতঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এতে দুই পরিবারের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে দাবী করেছেন ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সদস্যরা।

বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে এ অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত ঘটেছে বলে ধারণা করছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মী ও স্থানীয় লোকজন ।

সোমবার (১৭জানুয়ারী) রাত সোয়া ৭টার দিকে উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের ১নম্বর ওয়ার্ড হাজিয়ান এলাকায় মোকতার ও আকতার আহমদে’র বসতঘরে এ অগ্নিকান্ডে ঘটনা ঘটে।

ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যরা বলেন, সোমবার রাত ৭টার দিকে হঠাৎ আগুন লাগে। বাড়ি দুটি একসাথে হওয়ায় মুহূর্তের মধ্যে পুড়ে ছাই হয়ে যায়। বসতঘরে থাকা লোকজন প্রাণে রক্ষা পেলেও তারা কোনো ধরণের জিনিসপত্র বসতঘর থেকে বের করতে পারেনি। পরে স্থানীয় লোকজন ও ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের সহায়তায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। বর্তমানে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থ দুই পরিবারের সদস্যরা খোলা আকাশের নীচে মানবেকর জীবন-যাপন করছে।

চকরিয়া ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের কর্মকর্তা মো. সাইফুল হাসান বলেন, অগ্নিকাণ্ডের খবর পাওয়ার সাথে সাথে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে বলে এলাকার লোকজন জানিয়েছে। তবে কি পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা এখন বলা সম্ভব নয়।

এদিকে, অগ্নিকাণ্ডে বসতঘর পুড়ে যাওয়ার খবর শুনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদের, নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান হেলাল উদ্দিনসহ স্থানীয় বিভিন্ন গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

চকরিয়া উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জেপি দেওয়ান কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অগ্নিকান্ডের ঘটনার সংবাদটি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও গণমাধ্যমকর্মীরা আমাকে অবহিত করেছেন। বিষয়টি আমার নজরে রয়েছে। সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে করে ক্ষতিগ্রস্থ দুই পরিবারের জন্য শুকনো খাবার ও শীতবস্ত্র তুলে দেয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের তালিকা তৈরি করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে পাঠানো হবে। জেলা প্রশাসনের অনুদান পাওয়ার সাথে সাথে তা ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের কাছে প্রদান করা হবে বলে তিনি জানান।

রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।