১৫ বছর পর এফএ কাপের শিরোপা জিতলো লিভারপুল

ক্রীড়া ডেস্ক : নির্ধারিত সময়ের একের পর এক সুযোগ তৈরি করেও গোলের মুখ খুলতে পারেনি দুই দল। পুরো নব্বই মিনিটের গোল মিসের মহড়ায় নেমেছিল দুই দল। কখনো নিখুঁত ফিনিশিংয়ের অভাব আবার কখনো প্রতিপক্ষে রক্ষণে আটকে গেছে দুই দলের আক্রমণভাগের খেলোয়াড়রা।

অতিরিক্ত তিশ মিনিটেও কোনো দল পারেনি গোল করতে। শেষ পর্যন্ত টাইব্রেকারে শিরোপা জিতল লিভারপুল।

শনিবার রাতে ফাইনালে ওয়েম্বলিতে চেলসির বিপক্ষে টাইব্রেকারে ৬-৫ ব্যবধানে জিতেছে লিভারপুল। প্রায় ১৬ বছরের অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে অষ্টমবারের মত এফএ কাপের শিরোপা জিতল লিভারপুল।। সর্বশেষ ২০০৬ সালে এই টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল অলরেডরা। আর এ নিয়ে এফএ কাপের টানা তিন ফাইনাল হারল চেলসি।
শুরু থেকেই চেলসির উপর চড়াও হয়ে খেলতে থাকে লিভারপুল। তবে দ্রুতই নিজেদের গুছিয়ে আক্রমণে মনোযোগী হয় চেলসি। ২৭ মিনিটে সুবর্ণ সুযোগ পেয়ে যায় চেলসি। ক্রিস্টিয়ান পুলিসিকের দারুণ পাস ডি-বক্সে ফাঁকায় পেয়ে নিচু শট নেন মার্কোস আলোনসো, এগিয়ে গিয়ে ঠেকিয়ে দেন গোলরক্ষক আলিসন। ৩৩ মিনিটে পায়ে ব্যথা নিয়ে মাঠ ছাড়েন মোহাম্মদ সালাহ।

৫২ মিনিটে আবারও একটুর জন্য জালের দেখা পাননি লুইস দিয়াজ। ডি-বক্সের বাইরে থেকে কলম্বিয়ান ফরোয়ার্ডের শট পোস্ট ঘেঁষে বেরিয়ে যায়। আট মিনিট পর আরেকবার হতাশ করেন তিনি। নির্ধারিত নব্বই মিনিট গোল শূন্য সমতায় থাকায় খেলা গড়ায় অতিরিক্ত ত্রিশ মিনিটে। সেখানেও কোনো দল জালের দেখা পায়নি। ম্যাচের ভাগ্য গড়ায় টাইব্রেকারে।

পেনাল্টি শুট আউটে চেলসির হয়ে দ্বিতীয় শটেই গোল করতে ব্যর্থ হন সিজার আজপিলিকুয়েতা। লিভারপুলের পঞ্চম শট জালে জড়াতে পারেননি সাদিও মানে। এরপর চেলসির সপ্তম শটে ভুল করে বসেন ম্যাসন মাউন্ট। কিন্তু এবার আর ভুল করেননি লিভারপুলের সিমিকাস। তার শট জালে জড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে শিরোপা উদযাপনে মাতে লিভারপুল। ইয়র্গেন ক্লপের অধীনে এটা লিভারপুলের প্রথম এফএ কাপ জয়।

রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।