রাজকীয় প্রত্যাবর্তন টাইগারদের, শেষ ম্যাচে জিম্বাবুয়েকে নাস্তানাবুদ

ক্রীড়া ডেস্ক : স্বাগতিক জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে ১০৫ রানে জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। বুধবার হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে বাংলাদেশের দেওয়া ২৫৭ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ১৫১ রানে গুটিয়ে গেছে জিম্বাবুয়ে। স্বাগতিকরা ২-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতেছে। তবে এই জয়ে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হোয়াইটওয়াশের লজ্জা থেকে রক্ষা পেয়েছে টাইগাররা।

রান তাড়া করতে নেমে শুরুতেই তাকুদওয়ানাশে কাইতানোকে হারায় জিম্বাবুয়ে। পেসার হাসান মাহমুদের বলে শূন্য রানে এলবিডব্লিউয়ের শিকার হন কাইতানো। এরপর মারুমানিকে (১) বোল্ড করেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ৭ রানেই দুই উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে। এরপর ওয়ানডে অভিষেকে নিজের দ্বিতীয় ওভারে টানা দুই বলে দুই উইকেট শিকার করেছেন পেসার এবাদত হোসেন।

জিম্বাবুয়ের ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে এবাদতের লাফিয়ে উঠা ডেলিভারি বুঝতে না পেরে পয়েন্টে ক্যাচ তুলে দেন ওয়েসলে মাদভেরে (১)। এর পরের বলেই সিরিজের সবচেয়ে সফল ব্যাটার সিকান্দার রাজাকে (০) বোল্ড করে দেন এবাদত।

এরপরের দুটি উইকেট তাইজুল ইসলামের। দলীয় ৩১ রানে ইন্নোসেন্ট কাইয়া (১০) ও ৪৯ রানে টনি মুনিয়োঙ্গাকে (১৩) ফেরান তিনি। একপর্যায়ে ৮৩ রানেই ৯ উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে। এরপর শেষ উইকেটে ৬৮ রান যোগ করেন রিচার্ড এনগারাভা ও ভিক্টর নিয়ুচি। নিয়ুচি ২৬ রানে আউট হলেও এনগারাভা অপরাজিত থাকেন ৩৪  রানে। ৩২ দশমিক ২ ওভারে জিম্বাবুয়ে অলআউট হয় ১৫১ রানে।

বাংলাদেশের পক্ষে সবচেয়ে সফল বোলার মুস্তাফিজুর রহমান। ৫ দশমিক ২ ওভারে ১৭ রানের বিনিময়ে তিনি শিকার করেছেন চারু উইকেট। এছাড়া এবাদত হোসেন ও তাইজুল ইসলামের শিকার দুই উইকেট করে।
এর আগে, টসে হেরে ব্যাট করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে ২৫৬ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ। আফিফ হোসেন ৮১ বলে ৮৫ রানে অপরাজিত থাকেন। ওপেনার এনামুল হক বিজয় খেলেছেন ৭১ বলে ৭৬ রানের ইনিংস। এছাড়া মাহমুদ উল্লাহ রিয়াদের ব্যাট থেকে আসে ৬৯ বলে ৩৯ রান।

ম্যাচসেরা হয়েছেন আফিফ হোসেন, আর সিরিজসেরা হয়েছেন সিকান্দার রাজা।

রাইজিংকক্স.কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।